President

প্রথমার্ধে সাইডবেঞ্চে বসে উসখুস করছিলেন। বিরতির পরে মাঠে নেমেই ফিলিপে কৌতিনহো ফুটবল বিশ্বকে জানান দিলেন, কেন তিনি বার্সার কাছে এত দামি! তার সঙ্গে পাউলিনহোর গোল, বাছাইপর্বে টানা নবম জয় টিটের দলের।

শুক্রবার ভোরে ইকুয়েডরকে ২-০ ব্যবধানে হারিয়ে লাতিন অঞ্চল থেকে বিশ্বকাপ বাছাইয়ের শীর্ষস্থানটা আরও সুসংহত করেছে পাঁচবারের বিশ্ব চ্যাম্পিয়নরা।

ঘরের মাঠ অ্যারেনা ডি গ্রিমিতোতে শুরু থেকেই হাল্কা চালে খেলেছে সেলেসাওরা। প্রথমার্ধ থেকেই দেখা মিলেছে ব্রাজিলিয়ানদের চিরাচরিত মন জুড়ানো ফুটবলশৈলী। নেইমার-উইলিয়ান-জেসাসরা গোল করার চেয়ে যেন বেশি ব্যস্ত ছিলেন ইকুয়েডর রক্ষণের পরীক্ষা নিতে।

এমন পরীক্ষায় প্রথমার্ধে অল্পের জন্য পাস করে গেছে ইকুয়েডর রক্ষণ। ৯ মিনিটে বার্সার নতুন রিক্রুট পাউলিনহোর অসাধারণ এক আক্রমণ প্রতিহত করেছেন ইকুয়েডর গোলরক্ষক বানগুয়েরা। প্রতিপক্ষের তিন জন খেলোয়াড়কে পরাস্ত করা এই বার্সা মিডফিল্ডার আটকে গেছেন বানগুয়েরা দেয়ালে।

পরের মিনিটে উইলিয়ানের ২০ গজী দূরপাল্লার শট প্রায় কাঁপিয়ে দিয়েছিল অতিথিদের।

ম্যাচের ৩৫ মিনিটে গ্যাব্রিয়েল জেসাসও আটকে গেছেন ইকুয়েডর গোলরক্ষকের কাছে। কাসেমিরোর ডিফেন্স চেরা পাস অল্পের জন্য প্রতিপক্ষের জালে জড়াতে পারেননি এই ম্যানসিটি ফরোয়ার্ড। শুরুর অর্ধ তাতে গোলশূন্যই থাকে।

দ্বিতীয়ার্ধের ৬০ মিনিটে রেনাতো অগুস্তোর বদলি হিসেবে মাঠে নামেন কৌতিনহো। এর ৯ মিনিট পরেই প্রথম গোলের দেখা পায় ব্রাজিল। উইলিয়ানের কর্নার কিক জায়গা মত খুঁজে পায় পাউলিনহোকে। ডি-বক্সের বামপ্রান্ত থেকে জায়গা বের করে নিয়ে প্রতিপক্ষের জালে বল জড়িয়ে দেন এই মিডফিল্ডার। এই গোলে বিশ্বকাপ বাছাইপর্বে পাঁচ গোল হয়ে গেল পাউলিনহোর।

ম্যাচের ৭৬ মিনিটে জেসাসের জোরাল শট প্রতিহত করতে গিয়ে উল্টো কৌতিনহোর পায়ে ঠেলে দেন ইকুয়েডর গোলরক্ষক। সেই ভুলের সুযোগ বিন্দুমাত্র অপচয় না করে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন কৌতিনহো।

এই জয়ে ১৫ ম্যাচে ৩৬ পয়েন্ট হল শীর্ষে থাকা ব্রাজিলের। বিশ্বকাপ বাছাইয়ে টানা ১৪ ম্যাচ অপরাজিত থাকল সেলেসাওরা, সঙ্গে টানা নয় জয়। প্রথম ম্যাচে চিলির কাছ হার দেখার পর হারকে কাঁচকলা দেখিয়ে চলেছে টিটের দল।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/এস আর/আইএস

০১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১১:৩৬ এ.ম