President

ভবিষ্যতে নেতৃত্ব আসতে হবে ছাত্রলীগ থেকে। এর জন্য শিক্ষা একান্তভাবে দরকার। তাই ছাত্রলীগের প্রত্যেক কর্মীকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত হতে হবে। বললেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখা হাসিনা।
বৃহস্পতিবার রাজধানীর খামারবাড়ির কৃষিবিদ ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
শেখ হাসিনা বলেন, অশিক্ষিতরা দায়িত্ব পেলে দেশের কী সর্বনাশ হতে পারে তা তো আমরা দেখেছি। তারা মানুষ হত্যা, লুটপাট, দুর্নীতি ও মানি লন্ডারিং করে নিজেদের বিত্তবৈভব গড়ে তুলতে পারে। কিন্তু দেশের মানুষকে কিছু দিতে পারে না।
তিনি বলেন, যখন কোনো দুর্যোগ-দুর্বিপাক হয় আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগসহ সবাইকে উদ্বুদ্ধ করি দুর্গত মানুষের পাশে দাঁড়াতে। মানবতার কাজ করতে। এটাই বঙ্গবন্ধুর আদর্শ। এ আদর্শ নিয়ে সবাইকে কাজ করতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সব ষড়যন্ত্র মোকাবিলা করে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। দেশ এগিয়ে যাবে। শান্তি ছাড়া কখনো প্রগতি আসে না। আমরা চাই যে দেশে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ থাকবে। আমরা ধীরে ধীরে দেশকে প্রগতির দিকে এগিয়ে নিয়ে যাবো।
ছাত্রলীগের সঙ্গে নিজের সম্পৃক্ততার কথা উল্লেখ করতে গিয়ে তিনি বলেন, আমি ছাত্রলীগের একজন সামান্য সদস্য ছিলাম। একজন কর্মী থেকে সবসময় রাজপথের সংগ্রামে ছিলাম। বলতে গেলে এটাই হচ্ছে মূল সংগঠন যার সঙ্গে আমার আত্মার সম্পর্ক হয়েছে।
আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন ছাত্রলীগের সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ। পরিচালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/এস আর/আইএস

৩১ আগষ্ট, ২০১৭ ১৯:০৯ পি.এম