President

জরুরি ভিত্তিতে আরও সাড়ে তিন লাখ টন চাল আমদানি করছে সরকার। বুধবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত কমিটির পৃথক দুই বৈঠকে এ সংক্রান্ত দুটি ক্রয় প্রস্তাবের নীতিগত অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

বৈঠকে কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিবসহ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

পরপর দুবার বন্যার কারণে দেশে ব্যাপক ফসলহানি হয়েছে। এ অবস্থায় খাদ্যনিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এর আগে চালের সংকট কাটাতে কয়েক দফা চাল আমদানি করেছে সরকার। একই সঙ্গে বেসরকারি খাতে চাল আমদানিকে উৎসাহিত করতে আমদানি শুল্ক ২৮ শতাংশ থেকে কমিয়ে মাত্র ২ শতাংশ করা হয়েছে।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, দরপত্র আহ্বান ব্যতীত জরুরিভাবে রাষ্ট্রীয় প্রয়োজনে কম্বডিয়া সরকার থেকে সরকার পর্যায়ে ২ লাখ ৫ হাজার টন আতপ চাল আমদানির একটি প্রস্তাব নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা কমিটি।

এদিকে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি একই দেশ থেকে আরও ২ লাখ ৫ হাজার টন চাল সরকার থেকে সরকার পর্যায়ে আমদানির জন্য আরও একটি প্রস্তাব অনুমোদন করেছে। প্রতি মেট্টিক টন ৪৫৩ ইউএস ডলার হিসাবে এ আড়াই লাখ টন চাল আমদানিতে বাংলাদেশি টাকায় মোট খরচ হবে ৯৩৯ কোটি ৯৭ লাখা টাকা।

এ ছাড়া আন্তর্জাতিক কোটেশনের মাধ্যমে ২০১৭-১৮ অর্থবছর প্যাকেজ তিন এর আওতায় আরও ৫০ হাজার মেট্টিক টন নন-বাসমতি সিদ্ধ চাল আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেয় কমিটি। প্রতি মেট্টিক টন চাল ৪০৭ দশমিক ৮৯ ইউএস ডলার হিসাবে সরবরাহ করবে সিঙ্গাপুরের প্রতিষ্ঠান মেসার্স রেজিংটন এন্টারপ্রাইজ লিমিটেড। এতে বাংলাদেশি টাকা খরচ হবে ১৬৯ কোটি ২৭ লাখ টাকা।

৩০ আগষ্ট, ২০১৭ ১৯:০৩ পি.এম