President

চট্টগ্রাম: দেশে বাড়ছে জনসংখ্যা। এ বাড়তি জনসংখ্যা একদিকে যেমনি জনসম্পদ, অন্যদিকে জনসমস্যাও হতে পারে । এটি নির্ভর করছে এর সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনার ওপর। ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যা কে জনসম্পদে কীভাবে পরিনত করতে হবে এর ওপর একটি সচিত্র উপস্থাপনা দিয়েছেন চট্টগ্রামের তরুণ শিক্ষার্থীরা।

ডি ইঞ্জিনিয়ার্স ক্লাব (ডিইসি) আয়োজিত ব্যতিক্রমধর্মী প্রেজন্টেশন কনটেস্ট এ অংশ নিয়ে নানা সমস্যা ও সমাধান দেয় তারা।

সম্প্রতি বিজিসি ট্রাস্ট ইউনিভার্সিটি ও চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ঝাঁক শিক্ষার্থী বিচারকদের সামনে জনসংখ্যা বৃদ্ধি নিয়ে তাদের উপস্থাপনা প্রদান করে। এতে দুটো বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৩৫ জন প্রতিযোগী অংশ নেয়।

এর মধ্যে বিজিসি ট্রাস্টে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগীতায় তিন শিক্ষার্থী জনসংখ্যা বৃদ্ধির পক্ষে বিপক্ষে যুক্তি দিয়ে প্রেজেন্টেশন প্রদান করে উপস্থিত অতিথি ও দর্শকদের নজর কাড়েন ।বিজয়ী তিন দলের সদস্য হলেন মোঃ আশরাফুল ইসলাম,মোঃ আবু জাবের,আঞ্জুমান আরা ও বিশু বিশ্বাস। এবং চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিজয়ী হন
হিসাববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী রিমি ভট্টাচার্য ও অনন্যা মৌমিতা ।

কামরুন নাহার বীথির সঞ্চালনায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য ও ট্রেজারার অজিত কুমার দাশ,বিবিএ ফ্যাকাল্টির ডীন রণজিৎ কুমার দে, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্টার আক্তারুজ্জামান কায়সার ,ডেপুটি রেজিস্টার সালাউদ্দিন শাহরিয়ার প্রমুখ।

ডিইসি কে ধন্যবাদ জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত ভিসি বলেন, প্রেজেন্টেশনের বিষয়বস্তু খুব গুরুত্বপূর্ন এবং এ বিষয়ে সকলেরই পরিপূর্ন জ্ঞান থাকা উচিৎ।



তিনি আরো বলেন, বর্তমানে দেশে জনসংখ্যা আয়তনের চেয়ে বেশী যা আমাদের জন্য অভিশাপ হয়ে দাঁড়াবে যদিনা আমরা বেকার সমাজকে শিক্ষিত না করি এবং জনসম্পদে পরিনত না করি। এছাড়া সঠিক পরিবার পরিকল্পনা,সরকারি সহযোগিতা এবং সঠিক প্রচারনা থাকলে দেশের জনসংখ্যাবৃদ্ধি হ্রাস করা সম্ভব।

ক্লাবের প্রেসিডেন্ট সোমেন কানুনগো বলেন, তরুন শিক্ষার্থীরা শুধু পড়াশুনা করলেই হবে না তাদের জানতে হবে দেশ ও দেশের অভ্যন্তরীণ সবকিছুর ব্যাপারেও।তিনি আরো বলেন, জনসংখ্যাবৃদ্ধি কে অভিশাপ কিংবা আশির্বাদ তখনই ভাবার সুযোগ থাকবে যখন এ নিয়ে পরিপূর্ন গবেষণা ও তরুণদের সরব উপস্থিতি থাকবে।

অনুষ্ঠানের শেষাংশে ডিইসির প্রোগ্রাম কোর্ডিনেটর লোপামুদ্রা নন্দীর ঘোষনার মাধ্যমে বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেন প্রেজেন্টেশন প্রতোযোগিতার বিচারক নওরীন আফরিন চোধুরী, অভিজিৎ পাঠাক, সোমেন কানুনগো ও শুভাশিস ভট্টাচার্য। এতে আরো উপস্থিত ছিলেন ডি ইঞ্জিনিয়ার্স ক্লাবের বিজনেস টিম কোর্ডিনেটর বহ্নিশিখা নিগার দিয়া, মেম্বারশীপ কোর্ডিনেটর নাসরিন আক্তার ,প্রেস ও মিডিয়া অফিসার আকমাল হোসেন ও জেনারেল মেম্বার রাজীব নাথ। অনুষ্ঠানের মিডিয়া পার্টনার ছিলো আর টিভি, দৈনিক আজাদি ও জনপ্রিয় অনলাইন টাইমস ওয়ার্ল্ড২৪.কম।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/এস আর/এইচ কে

২৩ আগষ্ট, ২০১৭ ০১:৩০ এ.ম