President

গুপ্তচরবৃত্তি ও অন্তর্ঘাতমূলক কর্মকাণ্ডের অভিযোগে ভারতের নাগরিক কুলভূষণ যাদবকে (৪৬) মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন পাকিস্তানের একটি সামরিক আদালত। গতকাল সোমবার পাকিস্তানের ফিল্ড জেনারেল কোর্ট মার্শাল (এফজিসিএম) এ রায় দেন। রায়ের প্রতিক্রিয়ায় নয়াদিল্লিতে পাকিস্তানের হাইকমিশনার আবদুল বাসিতকে তলব করেছে ভারত।
পাকিস্তানের সামরিক বাহিনীর গণমাধ্যম শাখা আন্তঃ বাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এক বিবৃতিতে জানায়, ‘পাকিস্তানের সামরিক আইনের (পিএএ) আওতায় ফিল্ড জেনারেল কোর্ট মার্শাল (এফজিসিএম) ওই গুপ্তচরকে সাজা দিয়েছেন। তাঁকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে। তাঁর মৃত্যুদণ্ডাদেশের বিষয়টি আজ (সোমবার) সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়া নিশ্চিত করেছেন।’
আইএসপিআরের বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, গোয়েন্দা অভিযান চালিয়ে বেলুচিস্তানের মাশকেল এলাকা থেকে গত বছরের ৩ মার্চ কুলভূষণ যাদবকে গ্রেপ্তার করা হয়। তিনি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে গুপ্তচরবৃত্তি ও অন্তর্ঘাতমূলক কর্মকাণ্ডে লিপ্ত ছিলেন বলে অভিযোগ ছিল। 
আইএসপিআর বলেছে, গ্রেপ্তারের পর কুলভূষণ যাদব একজন ম্যাজিস্ট্রেটের সামনে এবং আদালতে স্বীকার করেছেন, তিনি ভারতীয় গোয়েন্দা সংস্থা রিসার্চ অ্যান্ড অ্যানালাইসিস উইংয়ের (র) হয়ে কাজ করছিলেন। বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, স্বীকারোক্তিতে কুলভূষণ যাদব বলেন, পাকিস্তানে অস্থিতিশীলতা বাড়াতে করাচি ও বেলুচিস্তানে সক্রিয় ছিলেন তিনি।
ভারতের প্রতিক্রিয়া
এদিকে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানায়, কুলভূষণের মৃত্যুদণ্ডাদেশের খবরে নয়াদিল্লিতে পাকিস্তানের হাইকমিশনার আবদুল বাসিতকে ডেকে পাঠিয়ে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ বলেছে, ‘যদি এই রায় কোনো ভারতীয় নাগরিকের বিরুদ্ধে আইন ও বিচারের মৌলিক নীতি উপেক্ষা করে দেওয়া হয়ে থাকে, আর তা যদি কার্যকর করা হয়, তাহলে ভারত সরকার ও এর জনগণ একে পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড হিসেবে মূল্যায়ন করবে।’
ভারত আরও জানিয়েছে, যে ১২ পাকিস্তানি বন্দীকে মুক্তি দেওয়ার কথা ছিল, তাঁদের ছাড়া হবে না। আজ মঙ্গলবার তাঁদের মুক্তির কথা ছিল।

১০ এপ্রিল, ২০১৭ ১৭:৪০ পি.এম