President

১৭০ রানে ৮ উইকেট হারিয়ে বাংলাদেশ তখন ভীষণ বিপদে। কিন্তু শেষ তিন ব্যাটসম্যানের দৃঢ়তা স্বাগতিকদের পৌঁছে দেয় ২১৬ রানে। সানজামুল-মোস্তাফিজ-রুবেলের সৌজন্যে লড়াইয়ের পুঁজি পেয়ে দারুণ খুশি তামিম ইকবাল। ম্যাচের সেরা খেলোয়াড় দলের টেল এন্ডারদের প্রশংসা করলেন অকুণ্ঠে।

ত্রিদেশীয় সিরিজের জন্য প্রায় দেড় মাসের ক্যাম্প করেছে বাংলাদেশ। এবারের ক্যাম্পের বিশেষত্ব ছিল বোলারদের আলাদা ব্যাটিং সেশন। মঙ্গলবার ব্যাট হাতে সানজামুল-মোস্তাফিজ-রুবেলরা ভালো অবদান রেখে দলকে স্বস্তি এনে দিয়েছেন।

সংবাদ সম্মেলনে তামিম তাই বোলারদের ব্যাটিংয়ের প্রশংসায় উচ্ছ্বসিত। টিম ম্যানেজমেন্টকেও ধন্যবাদ দিলেন ছয় হাজার রানের মাইলফলক ছোঁয়া ওপেনার, ‘কৃতিত্বটা অবশ্যই টিম ম্যানেজমেন্টকে দিতে হবে। গত এক-দেড় মাসে তাদের (লোয়ার অর্ডার ব্যাটসম্যানদের) ব্যাটিংয়ে বিশেষ মনোযোগ দিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট। আজ ৯, ১০ আর ১১ নম্বর ব্যাটসম্যান মিলে ৫০ রান (আসলে ৪৬) যোগ করেছে। দুই দলের মধ্যে পার্থক্য গড়ে দিয়েছে বলে তাদের সাধুবাদ জানাতেই হবে।’

অবশ্য মিডল অর্ডার ব্যর্থ হওয়ায় তামিম কিছুটা হতাশ, ‘আজ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানদের সামনে সুযোগ এসেছিল। সাব্বির অবশ্য দুর্ভাগা, আরভিনের দুর্দান্ত ক্যাচে তাকে ফিরতে হয়েছে। নাসিরও হতাশ করেছে। আশা করি, পরের ম্যাচে তারা রানে ফিরবে।’

ওপেনার এনামুল হকের ব্যাটিং নিয়ে তার মন্তব্য, ‘আজকের ম্যাচ বাদ দিলে বাকি দুই ম্যাচ সে ভালোই খেলেছে। আশা করি, শিগগিরই এনামুল বড় ইনিংস খেলবে।’

আগের দুই ম্যাচে ৮৪ রান করে ফিরলেও ম্যাচের সেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পাননি তামিম। অলরাউন্ড পারফরম্যান্সের কারণে দুই ম্যাচেই পুরস্কারটা পেয়েছেন সাকিব। মঙ্গলবার ৭৬ রানের সৌজন্যে ম্যাচসেরার পুরস্কার জিতে তামিমের প্রতিক্রিয়া, ‘আমি সব সময় বলি, আমার অ্যাওয়ার্ড চাই না, রিওয়ার্ড চাই। আজ আমার আর সাকিবের মধ্যে ম্যাচসেরার পুরস্কার নিয়ে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে। আজও সাকিব পুরস্কারটা পেলে আমার মন খারাপ হতো না।’

বিপিএলে উইকেট আর আউটফিল্ডের সমালোচনা করে জরিমানা গুনতে হয়েছিল তামিমকে। এই টুর্নামেন্টে উইকেটের সমালোচনা না করলেও ফাইনালে আরও ভালো উইকেটের প্রত্যাশা তার কণ্ঠে, ‘আমরা এখনও নিজেদের সেরাটা খেলতে পারিনি, কারণ উইকেটটা সহজ নয়। আজ প্রথম ১০-১৫ ওভারে বল মুভ করছিল, স্পিনারদের বিপক্ষেও ব্যাটিং করা কঠিন ছিল। একটা বল টার্ন করলে অন্যটা সোজা আসছিল। এমন উইকেটে ব্যাটিং করা বেশ কঠিন। আশা করি, এ ধরনের উইকেটে ফাইনাল হবে না। এমন উইকেটে খেলার জন্য আরও ভালো প্রস্তুতি প্রয়োজন।’

টানা তিন ম্যাচে সম্ভাবনা জাগিয়েও সেঞ্চুরি না পেয়ে বেশ হতাশ বাংলাদেশের সেরা ওপেনার, ‘সেঞ্চুরি করতে পারলে অবশ্যই ভালো লাগতো। তিন ম্যাচেই বেশ কাছে গিয়েও সেঞ্চুরি না পেয়ে আফসোস হচ্ছে। আজ আরও ৬-৭ ওভার ব্যাট করতে পারলে সেঞ্চুরি পেয়ে যেতাম।’

মঙ্গলবার বাংলাদেশের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ওয়ানডেতে ৬ হাজার রান করার পাশাপাশি নির্দিষ্ট কোনও ভেন্যুতে সবচেয়ে বেশি রানের রেকর্ড গড়েছেন তামিম। শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে সবচেয়ে বেশি রানের রেকর্ডটা তাকে তৃপ্তি দিচ্ছে বেশি, ‘আজ দুটো অর্জনের কথা মাথায় নিয়ে ব্যাট করতে নেমেছিলাম। একজন বাংলাদেশি হিসেবে একটি ভেন্যুতে সবচেয়ে বেশি রানের রেকর্ড গড়ে খুব ভালো লাগছে।’

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/ এইচ কে/এস আর

২৪ জানুয়ারী, ২০১৮ ০১:০৪ এ.ম