President

অ্যাপভিত্তিক গাড়ি ভাড়ার সেবা উবার পাঠাওয়ের মতো সেবার ধাক্কায় সুপথে এলো সিএনজি অটোরিকশা মালিকরাও। এত বছর নির্ধারিত ভাড়ায় না চলে নৈরাজ্যের পর এবার সরকার নির্ধারিত মূল্যে মিটারের ভাড়া অনুযায়ী চালানোর ঘোষণা দিয়ে অটোরিকশা ভাড়ার অ্যাপ চালু করেছেন মালিকরা। এখন থেকে নির্ধারিত অ্যাপে মোবাইলে ডাকলে সিএনজি অটোরিকশা এসে হাজির হবে এবং নির্ধারিত মূল্যে গন্তব্যে যাবে।

রাজধানীতে মঙ্গলবার পরীক্ষামূলকভাবে চালু হয়েছে রাইড শেয়ারিং অ্যাপ ‘হ্যালো’। অ্যাপটি পরীক্ষামূলক চালুর ঘোষণা দিয়ে অ্যাপ পরিচালনা প্রতিষ্ঠান টপ আই আই এর মুখপাত্র রোকেয়া প্রাচী বলেন, ‘হ্যালো’র মাধ্যমে রাজধানীতে সিএনজি অটোরিকশার যে হয়রানি ছিল এর সমাধান হবে। সরকারি নীতিমালার ভিত্তিতেই এই অ্যাপ চলবে, সেখানে যে ভাড়া নির্ধারণ করা হবে সেভাবেই মিলবে এই সেবা।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ‘হ্যালো’ অ্যাপটি চালুর ঘোষণা আসে।

প্রাথমিকভাবে রাজধানী ঢাকায় চালু হয়েছে অ্যাপটি। পরে পরে চট্টগ্রামেও চালু করা হবে এটি। ঢাকা মহানগর সিএনজি অটোরিকশা, ব্যবসায়িক মালিক সমিতি ঐক্য পরিষদ এবং ঢাকা জেলা সিএনজি অটোরিকশা শ্রমিক ঐক্য পরিষদের সহযোগিতায় ‘হ্যালো’অ্যাপটি উন্মুক্ত করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

রাজধানীতে সিএনজি অটোরিকশার নৈরাজ্যের মধ্যে প্রাইভেট কার বা মোটর সাইকেল ভাড়ায় কিছু অ্যাপভিত্তিক সেবা চালু হয়। এতে অটোরিকশার নৈরাজ্য অনেকটাই কমে আসে। বিশেষ করে উবার আর পাঠাওয়ের ধাক্কায় অটোরিকশা চালকরা বেকায়দায় পড়েন। যাত্রীর ইচ্ছামফিক গন্তব্যে যাওয়ার পাশাপাশি ভাড়া নিয়ে বাদানুবাদ না হওয়ায় অ্যাপভিত্তিক সেবাকেই বেছে নিচ্ছে নগরবাসীর একটি বড় অংশ। আর এ কারণে অটোরিকশার চাহিদা কমেছে অনেকাংশেই। এজন্য অটোরিকশাও ভাড়া চলবে বলে ঘোষণা দেয় মালিক পক্ষ।

নীতিমালা অনুযায়ী অটোরিকশা সরকার নির্ধারিত ভাড়ার বেশি আদায় করতে পারবে না। পাশাপাশি ইচ্ছামত গন্তব্যে যেতেও তারা বাধ্য থাকবে। ঢাকায় অটোরিকশায় প্রতি কিলোমিটারে ১২ টাকা নির্ধারিত আছে।

সংবাদ সম্মেলনে প্রতিষ্ঠানের মুখপাত্র রোকেয়া প্রাচী জানান, এই অ্যাপটির মাধ্যমে সবকিছুই একটি নীতিমালার মধ্যে আসবে। সম্পূর্ণ বাংলা ভাষায় তৈরি করা হয়েছে অ্যাপটি। আজ থেকে অ্যান্ড্রয়েড এবং আইওএস মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীরা গুগল প্লে স্টোর এবং অ্যাপল স্টোর থেকে ‘হ্যালো’ অ্যাপটি ডাউনলোড করতে পারবেন। এছাড়া যাত্রী ও চালক এই অ্যাপ ব্যবহার করে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবেন।

রোকেয়া প্রাচী বলেন, এক মাস পরীক্ষামূলক চলবে, এই এক মাসের অভিজ্ঞতাগুলো কাজে লাগিয়ে আগামী ১ মার্চ থেকে ‘হ্যালো’ রাইড শেয়ারিং সার্ভিস আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করবে।‘হ্যালো’ অ্যাপটি বাংলাদেশের প্রথম অনুমোদিত রাইড শেয়ারিং অ্যাপ। এরই মধ্যে ঢাকা ও চট্টগ্রামে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠান সরকারের অনুমোদন ছাড়াই রাইড শেয়ারিং ব্যবসা শুরু করেছে। তারা বাংলাদেশে এই ধরনের সেবার প্রথম পরিকল্পনাকারী এবং উদ্যোক্তা হওয়া সত্ত্বেও অনুমোদনহীনভাবে কোনো সার্ভিস চালু করেননি।

সোমবার 'রাইড শেয়ারিং সার্ভিস নীতিমালা-২০১৭' অনুমোদনের পর আজ থেকে এই সার্ভিসটি চালু হলো। এরই মধ্যে তারা ৫০০ সিএনজি চালককে শুদ্ধাচার বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন রোকেয়া প্রাচী।

রোকেয়া প্রাচী বলেন, সিএনজি অটোরিকশা রাইড শেয়ারিং সার্ভিস নীতিমালার আওতাভুক্ত নয়। তাই তাদের সার্ভিস চলবে সিএনজি-পেট্রোলচালিত ফোর স্ট্রোক থ্রি হুইলার সার্ভিস নীতিমালা অনুসারে। সিএনজি মিটারের ভাড়া অনুযায়ী অ্যাপে ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে।

 

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/ এইচ কে/এস আর

১৬ জানুয়ারী, ২০১৮ ১৭:১৭ পি.এম