President

কথায় আছে, মেয়েদের মন বোঝা খুব কঠিন। তবে এটা ঠিক তারা জীবনে কয়েকটি ব্যাপারে বেশ গুরুত্ব দেয়। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পুরনো অভ্যাস ছেড়ে নতুন জিনিসের তারা আগ্রহী হয়। আবার তাদের জীবনের কিছু কিছু বিষয় স্থায়ীও থাকে। কয়েকটি বিষয় আছে যা নিয়ে বাঁচতে মেয়েরা ভালবাসে।

স্বাধীনভাবে বাঁচা :বিষয়টা এমন নয় যে,তারা একাকী জীবন কাটাতে ভালবাসে, এই স্বাধীনতা হচ্ছে তার ব্যক্তিগত স্বাধীনতা। মেয়েরা ছোটবেলা থেকেই ছেলে সন্তানের তুলনায় একটু বেশি বাবা-মায়ের শাসনে বেড়ে ওঠে। তাদের অনেক ইচ্ছে কিংবা শখ অনেকসময় বাঁধা পড়ে কড়া শাসণের কারণে। নিজেদের অনুভূতি, পছন্দের কাজ করার জন্য তাদের ব্যক্তিগত স্বাধীনতা দরকার। কারণ,আজকের মেয়েটিও একদিন মা হবে- তাই নিজের অনুভূতি প্রকাশের স্বাধীনতা প্রতিটা মেয়েরই থাকা উচিত।

চিরদিনের বন্ধু : মেয়েদের সবচেয়ে কাছের বন্ধু মেয়েরাই হয় এবং এই সম্পর্ক তারা আজীবন ধরে রাখে। প্রিয় বান্ধবীর সঙ্গে মেয়েরা নিজেদের সব কথা বলতে পছন্দ করে,জীবনের ভাল-মন্দ সময়ে তাকে পাশে চায়।

ফুলের প্রতি আসক্তি : বেশিরভাগ মেয়েরই ছেলেবেলা থেকেই ফুলের প্রতি নিবিড় ভালবাসা দেখা যায়। অনেকের প্রিয় ফুলও থাকে। ফুল পেলে খুশি হয় না এমন মেয়ে খুব কমই আছে। কেউ কেউ ঘরে ফুলদানিতে ফুল রাখতে পছন্দ করে।কেউ সুযোগ পেলে বাগান করে কিংবা বারান্দার টবে ফুল গাছ লাগায়। তারা প্রকৃতির সঙ্গে সময় কাটাতে ভালবাসে, যেটা অনেকেই বুঝতে পারেন না।

মমতা লালন করা: যে বয়সীই হোক না কেন মেয়েরা অন্যের প্রতি সহানুভূতিসম্পন্ন হয়। যখন তারা ছোট থাকে তখন তারা পোষা প্রাণীর প্রতি ভালবাসা দেখায়। আস্তে আস্তে বড় হলে নিজ পরিবারের বাইরে অন্য শিশুদের প্রতি তারা মমতা দেখায়। বড় হলে কোন কিছু পাওয়ার আশা না করেই অন্যদের দিকে সাহায্যে হাত বাড়িয়ে দেয় তারা। হৃদয়ে মাতৃসুলভ মমতা লালন করে প্রায় প্রতিটি মেয়ে।

পোষা প্রাণির প্রতি ভালবাসা : কুকুর, বিড়াল, পাখি -যাই হোক না কেন মেয়েরা তাদের একাকী সময় এইসব পোষা প্রাণিদের সঙ্গে কাটাতে ভালবাসে। সৃষ্টির অন্যান্য প্রাণির প্রতি ভালবাসা প্রকাশ করতে তারা ভালবাসে। ছোটদের সঙ্গেও তাদের বন্ধন অনেক দৃঢ় হয়। তাদের সঙ্গে সময় কাটাতেও তারা পছন্দ করে। সূত্র : ফিটহগ

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/ এইচ কে/এস আর

১১ জানুয়ারী, ২০১৮ ১৪:৩৬ পি.এম