President

বর্তমান সময়ে প্রায়ই মোবাইল, ফেসবুক, ভাইবার, হোয়াটসঅ্যাপ এর মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রথমে পরিচয় এরপর প্রেম, তারপর বিয়ে হয়। এমন ঘটনা আমাদের সমাজে যেন চলমান রুপ ধারণ করেছে। এর ফলে বিভিন্ন সময় নানা ধরনের দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায়।

সম্প্রতি জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে প্রবাসীর সাথে কথিত বিয়ের নাটক সাজিয়ে, টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় অভিযুক্ত ওই নারী ও তার বাবা-মাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আটককৃতরা হলেন, ওই গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য ইমদাদুল হক (৫৭) ও তার স্ত্রী রুবিনা বেগম এবং তাদের মেয়ে শবনম মুস্তারী এমি। কথিত বিয়ের কনে হলো- শবনম মুস্তারী এমি।

সোমবার (২৫ ডিসেম্বর) রাতে উপজেলার মালঞ্চা গ্রাম থেকে ওই ৩ জনকে পুলিশ আটক করে বলে, জানা গেছে।

ভুক্তভোগী প্রবাসী হারুন ১৫ ডিসেম্বর দেশে ফিরলে বিয়ের কথা অস্বীকার করে মেয়েটি ও তার পরিবার। এরপর ওই প্রবাসী বিয়ের প্রমাণসহ থানায় মামলা করলে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

এ বিষয়ে পাঁচবিবি থানার অফিসার ইনচার্জ ফরিদ হোসেন জানান, ফেসবুকের মাধ্যমে লক্ষ্মীপুরের রায়পুর উপজেলার দক্ষিণ চর মোহনা গ্রামের কাজী আয়াতুল্লার ছেলে সৌদি প্রবাসী কাজী হারুন সাগরের সাথে শবনম মুস্তারী এমির পরিচয় হয়।

এরপরে ভাইবারে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে কাজী হারুন সাগর ও শবনম মুস্তারী এমির বিয়ের নাটক সাজিয়ে দীর্ঘ ৪ বছরে ধরে ওয়েস্টার্ন ইউনিয়ন ও বিকাশের মাধ্যমে ওই সৌদি প্রবাসী যুবকের কাছ থেকে ২৬ লাখেরও বেশি টাকা হাতিয়ে নেয় এমি ও তার মা-বাবা।

তিনি আরো জানান, গত ১৫ ডিসেম্বর দেশে ফিরে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার মালঞ্চা গ্রামে কথিত শ্বশুর বাড়ি আসলে এমি ও তার মা-বাবা ওই বিয়ের কথা অস্বীকার করে।

এরপর ওই প্রবাসী যুবক প্রমাণাদিসহ পাঁচবিবি থানায় মামলা দায়ের করেন। প্রাথমিক তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হলে পুলিশ এমি ও তার মা-বাবা, তাদের নিজ বাড়ি থেকে গ্রেপ্তার।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/ এইচ কে/এস আর

২৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৭:০৭ পি.এম