President

নীলফামারীর জলঢাকায় আনন্দ উৎসব ও বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্যদিয়ে পালিত হয়েছে মহান বিজয় দিবস। দিবসটি পালনে প্রতি বছর উপজেলা চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সৈযদআলী উপস্থিত থাকলেও এবারে ঘটেছে তার ব্যতিক্রম। তাকে নিয়ে বির্তক ও তাঁর উপস্থিতি প্রতিহতের ঘোষনা দেওয়ায় কোন কর্মসূচীতে দেখা যায়নি তাঁকে । বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে শনিবার সূর্যোদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোবধ্বনির মধ্যদিয়ে কর্মসূচীর সূচনা করেন উপজেলা প্রশাসন। সরকারী প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান জাতীয় পতাকা উত্তোলনসহ সকল কর্মসূচীতে অংশগ্রহণ করার কথা থাকলেও জামায়াত সমর্থিত চেয়ারম্যান হওয়ায় কেন্দ্রীয় যুবলীগ নেতা ও সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর সম্প্রতি স্থানীয় জিরো পয়েন্ট মোড়ের এক পথসভায় তাঁকে প্রতিরোধের ঘোষনা দেন।এর আগে বিজয় দিবস উদযাপন প্রস্তুতি সভায় যুবলীগের উপজেলা আহবায়ক মোঃ ছাদের হোসেন আপত্তি তুলেছিলেন ,উপজেলা চেয়ারম্যানের বিজয় দিবসে পতাকা উত্তোলন করা নিয়ে। এ ঘোষনাকে কেন্দ্র করে গত কয়েক দিনে প্রশাসনসহ বিভিন্ন মহলে আলোচনার ঝড় উঠে এবং এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করে। ফলে বিজয় দিবসের কোন কর্মসূচীতে দেখা যাযনি আলহাজ্ব সৈয়দ আলীকে। উপজেলা চেয়ারম্যানকে প্রতিরোধের বিষয়ে আব্দুল ওয়াহেদবাহাদুর বলেন, এবারে মন্ত্রী পরিষদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী স্বাধীনতা বিরোধী কোন দলের নেতা বা জনপ্রতিনিধিরা অংশ নিতে পারে না,তাই আমার এ ঘোষনা ছিল। কর্মসূচীতে অনুপস্থিত থাকার বিষয়ে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সৈয়দ আলী বলেন, শারীরিক অসুস্থতার কারনে এবারে কর্মসূচীঅংশ নিতে পারি নাই। এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুহঃ রাশেদুল হক প্রধান জানান, আমার কোন মন্তব্য নেই। অপর দিকে,দিবসটি পালনে মুক্তিযোদ্ধাসংসদ, প্রেসক্লাব,জলঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি,উপজেলা আওয়ামীলীগ, বিএনপি,জাতীয় পার্টি,জাসদ,বঙ্গবন্ধু প্রজন্ম লীগ,শ্রমিক ঐক্য পরিষদ, শ্রমিক সংগ্রাম পরিষদ, যুব মহিলা লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন,সরকারী,বে-সরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্যদিয়ে দিবসটি পালন করেছে।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/ এইচ কে/এস আর

১৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ ২৩:৩৪ পি.এম