President

আমিন উল্লাহ। একজন অবসরপ্রাপ্ত প্রকৌশলী। বিলাসবহুল বিশ্রামের জীবন ছেড়ে চৌষট্টি বছর বয়সের এ মানুষটি বেড়িয়ে এসেছেন রাজপথে।

এক হাতে হ্যান্ডমাইক, অন্য হাতে নানা শ্লোগান লেখা ব্যানার নিয়ে নেমে পড়েছেন মাদক বিরোধী প্রচারণায়। পাশাপাশি তিনি জঙ্গিবাদ থেকে দূরে থাকাসহ ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলার আহ্বান জানান।

নিয়ম করে প্রতিদিন সকালে বেরিয়ে পড়েন তিনি। একান্ত ব্যাক্তিগত উদ্যোগে সমাজ সচেতনতামূলক প্রচারণায় ছুটে বেড়ান পথে প্রান্তরে।

২০১২ সালে পিডিবির তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীর পদ থেকে অবসর নেয়ার পর থেকে এভাবেই ব্যস্ত সময় কাটান তিনি। তার বাড়ি নাটোরের বড়াইগ্রামের মেরিগাছা গ্রামে। বর্তমানে বসবাস করেন বনপাড়া পৌরসভার সরদারপাড়া মহল্লায়।

সোমবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ চত্ত্বর ও বনপাড়া বাজারে তাকে বিভিন্ন স্থানে ঘুরে ঘুরে হ্যান্ডমাইকে মাদকবিরোধী প্রচারণা চালাতে দেখা গেছে। এ সময় তিনি মাদকের কুফল তুলে ধরা, জঙ্গিবাদে না জড়ানো, ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলার আহ্বান জানাচ্ছিলেন। পথচারীসহ স্থানীয় লোকজনও দাঁড়িয়ে শুনছিলেন তার কথাগুলো।

প্রচারণা শেষে তার সঙ্গে কথা বললে তিনি জানান, সারা দেশে মাদকের বিক্রি ও সেবন বেড়ে গেছে। মাদকের ছোবলে শিক্ষার্থীরা লেখাপড়া থেকে দূরে সরে যাচ্ছে। মেধাশূন্য হয়ে পড়ছে জাতি। মাদকের টাকার যোগান দিতে গিয়ে পারিবারিক কলহ-বিবাদ বেড়েই চলছে। অনেক সময় টাকা না দেয়ায় বা সেবনে বাধা দেয়ায় মাদকাসক্তদের হাতে খুন হচ্ছেন বাবা-মা-স্ত্রী-সন্তানেরা।

তিনি জানান, গত মাসেও নাটোরের কাফুরিয়ায় মাদকের টাকা নিয়ে বিতর্কের এক পর্যায়ে নিজের স্কুল পড়ুয়া ছেলে ও মাকে গলাকেটে হত্যা করেছে এক মাদকসেবী। এছাড়া তরুণদের মাঝে জঙ্গীবাদ মাথা চাড়া দিয়ে উঠার চেষ্টা করছে।

আমিন উল্লাহ বলেন, এমন সামাজিক অবক্ষয় রোধে প্রশাসনের পক্ষ থেকে কিছু উদ্যোগ নেয়া হলেও সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে না উঠায় সে উদ্যোগ যথাযথ কাজে লাগছে না। আর এ কারণেই চাকরি থেকে অবসর নেয়ার পর তিনি ঘরে বসে না থেকে নেমে এসেছেন মাদক বিরোধী সংগ্রামে।

তার এ উদ্যোগকে অনেকেই স্বাগত জানালেও কেউ কেউ উপহাসও করছেন। তবে এতে দমে না গিয়ে তিনি প্রতিনিয়তই নিজ দায়িত্ব মনে করে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। জীবনে যতদিন বেঁচে থাকবেন, তিনি এ লড়াই চালিয়ে যাবেন বলে জানিয়েছেন।

অবসরপ্রাপ্ত এ প্রকৌশলী বলেন, আমার ডাকে যদি কিছু মানুষও মাদক থেকে সরে আসে, সৎপথে চলে তাতেই আমার পরিশ্রম সার্থক হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার আনোয়ার পারভেজ বলেন, অবসরের পর যে বয়সে বিশ্রাম নেয়ার কথা, সে বয়সে তার মাদক ও জঙ্গীবাদ বিরোধী এ একক উদ্যোগে সবার সহযোগিতা করা উচিৎ। সূত্র- যুগান্তর

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/ এইচ কে/এস আর

১২ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০১:১০ এ.ম