President

দুই সপ্তাহ ধরে গৃহবন্দি করে রাখার বিতর্কের মধ্যেই সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদ ছেড়ে ফ্রান্সে গেলেন লেবাননের সদ্যপদত্যাগী প্রধানমন্ত্রী সাদ আল-হারিরি।

সৌদি সময় শনিবার ভোরে সস্ত্রীক রিয়াদ ছাড়েন লেবাননের এই নেতা। ফ্রান্স সময় শনিবার সকাল ৭টায় তার প্যারিসে পৌঁছানোর কথা রয়েছে।

ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোনের আমন্ত্রণে দেশটিতে সফর করছেন সাদ আল-হারিরি। সেখানে ম্যাক্রোনের সঙ্গে তার সাক্ষাৎ করার কথা রয়েছে।

হারিরির পারিবারিক মালিকানাধীন ফিউচার টিভির এক ঘোষণায় জানানো হয়েছে, হারিরি তার ব্যক্তিগত উড়োজাহাজে করে উত্তর-পূর্ব প্যারিসের লা বার্গেট বিমানবন্দরের উদ্দেশে রওনা করেছেন।

তবে হারিরি ও তার স্ত্রীর সঙ্গে তাদের সন্তানেরা রয়েছেন কি না তা ফিউচার টিভির ঘোষণায় নির্দিষ্ট করে বলা হয়নি।

এদিকে শুক্রবার দিবাগত রাতে এক টুইটা বার্তায় হারিরি বলেন, ‘আমি বিমানবন্দরের পথে’।

লেবাননের ক্ষমতাসীন দল ফিউচার মুভমেন্টের এমপি ওকাব সাকর জানিয়েছেন, সাদ আল হারিরি ফ্রান্স সফর শেষে বৈরুতে ফেরার আগে ‘আরবে সংক্ষিপ্ত সফর’ করবেন।

হারিরি ‘আগামী কয়েক দিন বা কয়েক সপ্তাহের মধ্যে’ লেবানন ফিরবেন বলে জানান ওকাব।

উল্লেখ্য, এ মাসের শুরুতে হঠাৎ করেই সৌদি আরবের রাজা সালমান বিন আবদুল আজিজের ফোন পেয়ে দেশটিতে ছুটে যান লেবাননের প্রধানমন্ত্রী সাদ আল-হারিরি।

এরপর ৪ নভেম্বর রাতে সৌদি টেলিভিশনে প্রকাশিত এক ভিডিও বার্তায় আকস্মিকভাবে লেবাননের প্রধানমন্ত্রীর পদ ছাড়ার ঘোষণা দেন সৌদির দ্বৈত নাগরিক হারিরি।

এ সময় বাবার মতো নিজেও আততায়ীদের হাতে নিহত হতে পারেন বলে আশঙ্কার কথা জানান লেবাননের সাবেক প্রধানমন্ত্রী রফিক হারিরির ছেলে সাদ।

হত্যার ষড়যন্ত্রের জন্য লেবাননের শিয়া মিলিশিয়া দল হিজবুল্লাহ ও ইরানকে অভিযুক্ত করেন তিনি।

কিন্তু হিজবুল্লাহ উল্টো অভিযোগ করেন, হারিরিকে পদত্যাগে বাধ্য করার পাশাপাশি গৃহবন্দি করে রেখেছে সৌদি আরব। তারা লেবাননের প্রধানমন্ত্রীকে দ্রুত দেশে ফিরতে বলেন। একই আহ্বান জানায় ইরানও।

এছাড়া লেবাননের প্রেসিডেন্ট মিশেল আউন বিদেশ থেকে ঘোষিত এ পদত্যাগপত্র গ্রহণ না করে প্রধানমন্ত্রী হারিরিকে দেশে ফেরার আহ্বান জানান।

এদিকে সাদ আল-হারিরিকে গৃহবন্দি করে রাখা নিয়ে বিতর্কের মধ্যে গত বৃহস্পতিবার রিয়াদ সফর করেন লেবাননের সাবেক ঔপনিবেশিক শক্তি ফ্রান্সের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জিন-ইভেস লা দ্রিয়ান। এসময় তিনি হারিরিকে সস্ত্রীক ফ্রান্স সফরে ফরাসি প্রেসিডেন্টের আমন্ত্রণের কথা জানান।

এরপরই দ্রুততার সঙ্গে রিয়াদ ছেড়ে ফ্রান্সে রওনা দিলেন লেবাননের পদত্যাগী প্রধানমন্ত্রী। হারিরি রিয়াদ ছাড়ার মধ্য দিয়ে সংকটের জট খুলতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/এস আর

১৮ নভেম্বর, ২০১৭ ১৩:০১ পি.এম