President

প্রাইভেট পড়ে আসার পথে জেএসসি পরিক্ষার্থী প্রিয়াংকাকে অপহরণ করে ধর্ষণের পর জবাই করে হত্যা করেছে বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তারকৃত শহিদুল্লাহ ডাকাত, হাসান ও উদরুত উল্লাহ স্বীকার করেছেন। অন্য একটি স্থানে হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটিয়ে বরাব কবরস্থান এলাকার দুই বাড়ির সীমানা প্রাচীরের পানির ড্রেনে লাশ ফেলে রাখা হয়। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন, রূপগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসমাইল হোসেন। নিহত প্রিয়াংকা উপজেলার বরাব এলাকার ওষুধ ব্যবসায়ী মহিউদ্দিনের মেয়ে। প্রিয়াংকা স্থানীয় হাজী আয়েত আলী ভুইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

ওসি ইসমাইল হোসেন জানান, এ হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে ৪ জন। তাদের মধ্যে শহিদুল্লাহ ডাকাত, হাসান ও উদরুত উল্লাহকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সুজন নামে আরো এক জন পলাতক রয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত শহিদুল্লাহ ডাকাত ও হাসানের বাড়ি বরাব এলাকায় এবং উদরুত উল্লাহ’র বাড়ি খাদুন এলাকায়। বর্তমানে তারা পুলিশি রিমান্ডে রয়েছে। রিমান্ড শেষে স্বীকারোক্তিমুলক জবান বন্দির জন্য নারায়ণগঞ্জ আদালতে নেয়া হবে। এর আগে, প্রিয়াংকার পরিবারের অভিযোগের ভিত্তিত্বে মাসুম মিয়া নামে এক যুবককে গ্রেফতার করা হয়। মাসুম মিয়া এ হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত আছে কি না তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

নিহতের বাবা মহিউদ্দিন, মা নাছিমা, বোন আমেনাসহ পরিবারের সদস্যরা জানান, তাদের ইচ্ছে ছিলো প্রিয়াংকাকে উচ্চ লেখা-পড়া করিয়ে একজন বিশেষজ্ঞ ডাক্তার হিসেবে গড়ে তোলার। সেই ইচ্ছা আর পুরন হলোনা। ঘাতকরা প্রিয়াংকার প্রাণ কেড়ে নিলো। পরিবারের সদস্যদের দাবি, যারা প্রিয়াংকাকে নির্মম ভাবে হত্যা করেছে, তাদের অবিলম্বে ফাঁসি দিতে হবে। তাহলেই প্রিয়াংকার আত্মা শান্তি পাবে।

হাজী আয়েত আলী ভুইয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বলেন, প্রিয়াংকা একজন ভালো ছাত্রী ছিলো। সকল শিক্ষার্থীদের সঙ্গে প্রিয়াংকা লেখা-পড়ার পাশাপাশি খেলাধুলায়ও ব্যস্ত সময় পার করতো। নরপিচাশের মতো যারা এ ধরনের কাজ করেছে, তাদের দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানাই।

এলাকাবাসী অভিযোগ করে জানিয়েছেন, শহিদুল্লাহসহ তার লোকজন এলাকায় হত্যা, অপহরণ, ধর্ষণ, অস্ত্র, নারি নির্যাত, মাদকসহ বিভিন্ন ধরনের অপরাধ মুলক কর্মকান্ড করে আসছে। তাদের ভয়ে এলাকার কেউ টু-শব্দটিও করতে পারেনা। এছাড়া শহিদুল্লাহ ডাকাতের বিরুদ্ধে রূপগঞ্জসহ বিভিন্ন থানায় ডজন খানেক মামলা রয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ৫ নভেম্বর সকালে বরাব কবরস্থান এলাকার দুই বাড়ির সীমানা প্রাচীরের পানির ড্রেনে জেএসসি পরিক্ষার্থী প্রিয়াংকার জবাই করা লাশ পড়ে থাকতে দেখে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেন। পরে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় প্রিয়াংকার বাবা মহিউদ্দিন বাদী হয়ে রূপগঞ্জ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/এস আর

১২ নভেম্বর, ২০১৭ ১৭:২৯ পি.এম