President

আন্দোলনরত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের পাঁচ দফা দাবি পূরণের আশ্বাস দিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত ভিসি অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান। এসব দাবির বিষয়ে ঢাবির ভারপ্রাপ্ত ভিসি অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান বলেন, ‘আমরা দ্বিতীয় ও চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের ফল প্রকাশের ডেডলাইন দিয়েছি। আমরা নভেম্বর মাসের কথা বলেছি। আশা করছি নভেম্বরের আগেই দিয়ে দেব’।

রোববার দুপুরে গণমাধ্যমকে এ তথ্য জানিয়েছেন ঢাবির ভারপ্রাপ্ত ভিসি নিজেই।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে রাজধানীর ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, কবি নজরুল কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ, মিরপুর সরকারি বাঙলা কলেজ ও সরকারি তিতুমীর কলেজ ঢাবির অধিভুক্ত হয়।

এ কলেজগুলোতে পরীক্ষার ফল প্রকাশ না করা, শিক্ষার্থীদের পরীক্ষার রুটিন না দেয়া, একাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রকাশ না করাসহ নানা সমস্যায় পড়ে এ কলেজগুলো।

ফলে বিভিন্ন দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন অধিভুক্ত ওইসব কলেজের শিক্ষার্থীরা।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে আজ রোববার শিক্ষার্থীরা রাজধানীর নীলক্ষেত মোড়ে পাঁচ দফা দাবি নিয়ে আন্দোলনে নামে। তাদের পাঁচ দফা দাবির মধ্যে রয়েছে- এক হাজার ২০০ ছাত্রের বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহার, চতুর্থ ও দ্বিতীয় বর্ষের ফল দ্রুত প্রকাশ, একাডেমিক ক্যালেন্ডার প্রকাশ, তৃতীয় বর্ষের রুটিন প্রকাশ ও অধিভুক্ত সাত কলেজের জন্য স্বতন্ত্র ওয়েবসাইট খোলা।

তবে অধিভুক্ত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা ঢাবি ভিসি আশ্বাস দিলেও তাতে আস্থা রাখতে পারছেন না চতুর্থ ও দ্বিতীয় বর্ষের পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশসহ পাঁচ দফা দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তিুতমীর কলেজের এক শিক্ষার্থী বলেন, আমরা ভিসির আশ্বাসে বিশ্বাসী না, কারণ তিনি বলেছেন নভেম্বরের মধ্যে আমরা ফলাফল দিতে চেষ্টা করব। এটা কোনো কথা হতে পারে না। কারণ এর আগেও মাননীয় ভিসি স্যার পাঁচ ছয় বার এই রকম আশ্বাস দিয়েছেন, কিন্তু আশ্বাসের পরিপূর্ণতা কখনো পায়নি। তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি সুনির্দিষ্ট কোনো সময় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে না পেলে আমাদের এই অবস্থান কর্মসূচি আমরণ অনশনে রূপ নেবে। যতক্ষণ পর্যন্ত সুনির্দিষ্ট কোনো সময় না পাচ্ছি ততক্ষণ পর্যন্ত আমরা রাস্তায় থাকব। দরকার পড়লে আমাদের সহপাঠী সিদ্দিকুরের মতো আরও ১৪ হাজার সহপাঠীর চোখের আলো নিভবে, তবুও শিক্ষায় আলো ফেরাতে আমাদের এই অনশন চলতেই থাকবে।

আজকের অনশনের প্রধান কর্মসূচি রাষ্ট্রপতির কাছে স্মারকলিপি পেশ করার কথা থাকলেও আপাতত ওই কর্মসূচি থেকে সরে এসেছেন সাত প্রতিনিধি। তবে তারা বলেছেন, আমাদের স্মারকলিপি প্রস্তুত আছে, প্রয়োজন মনে করলে সবার মতামত অনুসারে সেটি করা হবে। এর আগে গত বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলন করতে এসে তাদের সহপাঠী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের দ্বারাই অপমানিত হয়েছিলেন তারা।

এর আগে সকাল থেকে নীলক্ষেতে মোড়ে সড়ক অবরোধ করে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা। এসময় আন্দোলনরত ইডেন কলেজের রাষ্ট্র বিজ্ঞানের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী পিয়াংকা হাওলাদার বলেন, আমাদের অন্যতম দাবি হচ্ছে কোন আশ্বাস বা প্রতিশ্রুতি নয়, বরং দ্রুত সময়ে আমাদের ফলাফল ঘোষণা করা হোক। একই দাবির কথা জানান ইডেল কলেজের রাষ্ট্র বিজ্ঞানের চতুর্থ বর্ষের ছাত্রী লিপি ও সামিয়া। তারা বলেন, যতদিন আমাদের পাঁচ দফা দাবি মেনে নেয়া না হবে ততদিন আমাদের আন্দোলন চলবে।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/এস আর

 

০৮ অক্টোবর, ২০১৭ ১৮:৫৩ পি.এম