President

মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলিমদের অধিকারের জন্য দ্য আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি (আরসা) যুদ্ধ করছে দাবি করে সংগঠনটির পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, সরকার যদি চায় তারা শান্তি আলোচনায় যোগ দিতে রাজি। তাদের ঘোষিত এক মাসের অস্ত্রবিরতি সোমবার মধ্যরাতে শেষ হচ্ছে।

শনিবার বার্তা সংস্থা রয়টার্স আরসার এক বিবৃতির বরাত দিয়ে এ কথা জানায়।

সংগঠনটি তার টুইটার অ্যাকাউন্টে দেওয়া ওই বিবৃতিতে জানিয়েছে, আরাকানে মানবিক সংকটের পরিপ্রেক্ষিতে মানবিক সহায়তা কার্যক্রমের সুযোগ দিতে মানবিক বিবেচনায় তারা যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করেছিল। যেকোনো পর্যায়েই বার্মা সরকার যদি শান্তি চায়, তবে আরসা তাকে স্বাগত জানায়।

যুদ্ধবিরতি শেষ হওয়ার পরে কি করা হবে সেই ব্যাপারে কোনো কথা বলেনি আরসা। তবে তারা জানিয়েছে, তারা চায় অত্যাচার ও নিপীড়ন বন্ধ হোক।

মিয়ানমার সরকারের পক্ষ থেকে আরসা’র প্রস্তাবের বিষয়ে এখনও কোনও বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে ‘আরসা’ যখন যুদ্ধবিরতির ঘোষণা দিয়েছিলো তখন সরকারের এক মুখপাত্র বলেছিল, ‘সন্ত্রাসীদের সঙ্গে আলোচনা করার জন্য আমাদের কোনও নীতি নেই।’

এ বছর আগস্ট মাসের শেষ দিকে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনীর ফাঁড়ির ওপর আরসার সশস্ত্র বিদ্রোহীরা অনেকগুলো আক্রমণ চালায়। ওই আক্রমণে দুপক্ষে অন্তত ১৪ জন নিহত হয়। এরপর বর্মী সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের ওপর পাল্টা আক্রমণ শুরু করে। ফলে লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গা শরণার্থী পালিয়ে বাংলাদেশ আশ্রয় নেয়। বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের অনুপ্রবেশ এখনো বন্ধ হয়নি। বরং শুক্রবার জাতিসংঘ থেকে আশঙ্কা করা হয়, মিয়ানমার থেকে আবার রোহিঙ্গা ঢল আসতে পারে।


টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/এস আর

০৮ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:৫২ এ.ম