President

নওগাঁর ধামইরহাটে প্রতিবন্ধি দুই সন্তানকে নিয়ে বিপাকে পরেছেন দিনমজুর এক পরিবার। সন্তানদের কে সুস্থ্যভাবে বেড়ে ওঠার প্রয়োজনে চিকিৎসার জন্য শেষ সম্বল জমি বিক্রি করেও তাদের কে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আনতে না পেরে অনেকটা হতাশ হয়ে পরেছেন। বর্তমানে সন্তানদের ভবিষ্যৎ নিয়ে গভীর হতাশায় দিন যাপন করছে পরিবারটি।


জানা গেছে, উপজেলার ধামইরহাট ইউনিয়নের জোওসমান গ্রামের দিনমজুর নুর মোহাম্মদ ও তার স্ত্রী কাজল রেখা আশা করেন সন্তান হয়ে পরিবারের দায়ভার তার হাতে তুলে নিবে। কিন্তু একুশ বছর আগে তাদের ঘরে জন্ম নেয় নাজনীর নাহার। মেয়েটি প্রতিবন্ধি। এর পাঁচ বছরপর একটি ছেলে মাসুদ রানা (১৬) জন্ম গ্রহণ করে। মাসুদ রানাও প্রতিবন্ধি হিসেবে জন্ম নেয়। দুটি সন্তানই প্রতিবন্ধি হিসেবে জন্ম গ্রহণ করায় অসহায় পরিবার তাদের স্বাভাবিক জীবনে ফিরিয়ে আনতে অনেক অর্থ ব্যয় করে বিভিন্ন জায়গায় চিকিৎসা করিয়েছেন। তারপরও তারা স্বাভাবিক জীবন ফিরে না পাওয়ায় পিতামাতা অনেকটা হতাশ হয়ে পড়েছেন।


নুর মোহাম্মদ বলেন, প্রতিবন্ধি সন্তানদের নিয়ে সারাদিন তার স্ত্রী কাজল রেখাকে ব্যস্ত থাকতে হয়। নিজের বসত বাড়ী ও সামান্য কিছু জমি ছাড়া সম্পদ বলতে আর কিছু নেই। দু’সন্তানকে সুস্থ্য করার জন্য জমি বিক্রি করে চিকিৎসা করা হয়। কিন্তু ফল তেমন পাওয়া যায়নি। কিন্তু ভারতে নিয়ে উন্নত চিকিৎসা দিতে পারলে সন্তানরা সুস্থ্য হবেন এমনটা তিনি আশা করছেন। কিন্তু এতে অনেক অর্থের প্রয়োজন, যা তার পক্ষে সংগ্রহ করা কঠিন ও দূরহ কাজ। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, তার স্বপ্ন অর্থের কারণে বাস্তবায়ন সম্ভব হচ্ছে না। তিনি আরও বলেন, অন্যের বাড়ীতে কাজ করে তিনি সংসার চালান।


তার স্ত্রী কাজল রেখা বলেন, দুটো সন্তানকে সারাদিন বিছানায় শুয়ে থাকতে হয়। চলাফেরা করতে পারে না। কথা বলতে পারে না। আর সার্বক্ষণিক তাদেরকে দেখভাল তাকে করতে হয়। আগে একটি হুইল চেয়ার ছিল। চেয়ারে বসে দিলে তারা অনেক সময় কাটত। কিন্তু হুইল চেয়ারটিও নষ্ট হয়ে গেছে। তাই দিনরাত তাদের সঙ্গে থাকতে হয়। অর্থের অভাবে হুইল চেয়ারও কিনতে পারছেন না।
এমতাবস্থায় তিনি সরকার ও সমাজের বিত্তবান সুহৃদয় ব্যক্তিদের নিকট তার প্রতিবন্ধি সন্তানদের জন্য হুইল চেয়ার ও উন্নত চিকিৎসা চালিয়ে যেতে সাহায্যের হাত এগিয়ে আসার আকুল আবেদন জানান। মুঠোফোন নম্বর ০১৭৬৫-২৩১৫৩৯ অথবা ০১৭৪৮-৭৩৩৩৪১ এর মাধ্যমে সাহায্যে আবেদন জানিয়েছেন।
ধামইরহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. কামরুজ্জামান বলেন, প্রতিবন্ধি দুই ভাই বোনকে প্রতিবন্ধি ভাতা দেয়া হয়। তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য পরিষদ থেকে সাধ্যমত সাহায্য প্রদান করা হবে।


উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা তারিকুল ইসলাম বলেন, চলতি বছরের জুলাই থেকে প্রতিবন্ধি দুই ভাই বোন প্রতি মাসে ৭০০ টাকা করে ভাতা পাবে যা অক্টোবর মাসে তিন মাসের ভাতা এক সঙ্গে প্রদান করা হবে। তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য জাতীয় সমাজকল্যাণ পরিষদ ও রোগী কল্যাণ সমিতি বরাবর আবেদন করলে বিষয়টি সুবিবেচনা পূর্বক দেখা হবে।


টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/এস আর

০৩ অক্টোবর, ২০১৭ ১৪:১০ পি.এম