President

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন(ইউজিসি)কর্তৃক প্রবর্তিত প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক ২০১৫ ও ১৬ সালের জন্য মনোনীত হয়েছেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ১৩ শিক্ষার্থী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আওয়াতাধীন মেডিকেল কলেজের ২ শিক্ষার্খী।

সম্প্রতি ইউজিসির নিজস্ব ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানা যায়।

এ পদকে ভূষিত হওয়া ২০১৫ সালের শিক্ষার্থীরা হলেন- কলা ও মানববিদ্যা অনুষদ থেকে আরবি বিভাগের ইমাম উদ্দীন (৩.৮৪), ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ থেকে ফিন্যান্স বিভাগের জিনাতুল মাওয়া (৩.৮৯),সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ থেকে লোক প্রশাসন বিভাগের রিফাত জাহান লরেন (৩.৭৩) , বিজ্ঞান অনুষদ থেকে পরিসংখ্যান বিভাগের দিপা রাণী দাস (৩.৯০), জীববিজ্ঞান অনুষদ থেকে প্রাণিবিদ্যা বিভাগের মো. এমদাদুল হক, ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ থেকে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের মো. আতাউর রহমান (৩.৯৩), আইন অনুষদের আইন বিভাগ থেকে নূর ইসরাত জাহান (৩.৭২) ও মেডিসিন অনুষদ থেকে অধিভূক্ত মেডিকেল কলেজের রাকিবুল আমিন বিজয় (১১৮৬)।

অপর দিকে, ২০১৬ সালে প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদকের জন্য মনোনীতরা হলেন- কলা ও মানববিদ্যা অনুষদ থেকে দর্শন বিভাগের আহসানউল্লাহ রাফি (৩.৫৮), সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ থেকে লোক প্রশাসন বিভাগের সুস্মিতা আচার্য্য (৩.৫৮), বিজ্ঞান অনুষদ থেকে গণিত বিভাগের পারভীন আক্তার (৩.৮৮), জীব বিজ্ঞান অনুষদ থেকে জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি বিভাগের জান্নাতুন নাঈমা (৩.৯৩), ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ থেকে ব্যবস্থাপনা বিভাগের চৌধুরী উম্মে কুলসুম (৩.৯৬), ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ থেকে কম্পিউটার সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের মোহাম্মদ আমিনুল ইসলাম (৩.৯১) ও মেডিসিন অনুষদ থেকে অধিভুক্ত মেডিকেল কলেজের সুমাইয়া তাসনীম (১২২০)।

এদিকে স্বর্ণ পদক ২০১৫'র জন্য মনোনীত হওয়া আরবী বিভাগের ইমাম উদ্দীন এক প্রতিক্রিয়ায় টাইমস ওয়ার্ল্ড টোয়ান্টিফোরকে জানান,একজন মানুষকে তার লক্ষ্যে পৌঁছাতে নিজের প্রচেষ্টা বড় ধরনের ভূমিকা রাখে।এর চেয়ে বড় ধরনের ভূমিকা রাখে মা-বাবার দোয়া ও শিক্ষকদের গাইডলাইন।আমি মনেকরি আমার এই পদক অর্জনের পিছনে আমার মা-বাবার প্রচেষ্টা ও ছোট বেলা থেকে বিশ্ববিদ্যালয় পর্যন্ত যে সকল শিক্ষকবৃন্দ আমাকে পাঠদান করেছেন, তাদের উৎসাহ,উদ্দীপনা ও তদারকি বিরাট ভূমিকা রেখেছে।বিশেষ করে ছোট বেলায় যদি তাঁরা আমাকে বড় বড় স্বপ্ন না দেখাতেন, তাহলে হয়তো বিশ্ববিদ্যালয় অঙ্গনে পা রেখে প্রধানমন্ত্রী স্বর্নপদক অর্জন করা সম্ভব হত না।

উল্লেখ্য যে, উচ্চশিক্ষায় শিক্ষার্থীদের মেধাবিকাশে উৎসাহিত করতেই ইউজিসি ২০০৬ সাল থেকে প্রধানমন্ত্রীর এই স্বর্ণপদক প্রবর্তন করে।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/এস আর

২৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৪:৫৭ পি.এম