President

সারাদেশে বার্মিজ সব ধরনের পণ্য বর্জনের ডাক দিয়েছে 'গণজাগরণ মঞ্চ'। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গা মুসলিমদের গণহত্যার প্রতিবাদে এ ডাক দেয়া হয়।

একইসঙ্গে মিয়ানমারের সঙ্গে সব ধরনের বাণিজ্যিক সম্পর্ক ছিন্ন করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে গড়ে উঠা সংগঠনটি।

সোমবার মিয়ানমার দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচির আগে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে এ আহ্বান জানান গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ডা. ইমরান এইচ সরকার। রাজধানীর গুলশান-২ নম্বর গোলচত্বরে এ সমাবেশ হয়।

সমাবেশ শেষে পুলিশি বাধার কারণে দূতাবাস অভিমুখে যেতে পারেননি গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীরা। তবে ইমরান এইচ সরকারের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল দূতাবাসে গিয়ে স্মারকলিপি দিয়ে আসে।

সমাবেশে ইমরান এইচ সরকার বলেন, 'যে অস্ত্র দিয়ে মিয়ানমার রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে গণহত্যা চালাচ্ছে তা কেনা বন্ধ করতে হলে তাদেরকে বাণিজ্যিকভাবে কোণঠাসা করতে হবে। তাদের পণ্য বর্জন করতে হবে। যে চালের ভেতরে মানুষের রক্ত লেগে আছে, সে চাল এদেশের মানুষ খেতে চায় না।'

তাই মিয়ানমার থেকে চাল আমদানি অবিলম্বে বাতিল করে জনগণের মুখ উজ্জ্বল করার জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

ডা. ইমরান বলেন, 'নারী শিশুসহ রোহিঙ্গাদের লাশ পানির স্রোতের মতো বাংলাদেশে ভেসে আসছে। মিয়ানমারের অমানবিকতা মাত্রা ছাড়িয়েছে। অন্যদিকে বিতাড়িত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিয়ে বাংলাদেশ সারাবিশ্বে অনন্য নজির স্থাপন করেছে।' তবে এক্ষেত্রে মানবিকতা ও জাতীয় নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

ডা. ইমরান আরও বলেন, 'বার্মাকে সারা পৃথিবীর মানুষ প্রত্যাখ্যান করছে। বাংলাদেশে তাদের দূতাবাস ঘেরাওয়ের কর্মসূচি হয়েছে। সারাবিশ্বেও এটা শুরু হবে। আন্তর্জাতিকভাবে প্রতিহত হবে তারা।'

নোবেল শান্তি পুরস্কারবিজয়ী মিয়ানামারের নেত্রী অং সান সু চি'রও সমালোচনা করেন তিনি।

স্মারকলিপি প্রদান: পুলিশি বাধার কারণে দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি পালন করতে না পারলেও চার দফা দাবিতে স্মারকলিপি দিয়েছে গণজাগরণ মঞ্চ। দাবিগুলো হলো—রাখাইনে গণহত্যা বন্ধ করা, রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারের নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া, বাংলাদেশে শরণার্থী হিসেবে আসা রোহিঙ্গাদের যথাশীগ্র মিয়ানমারে ফিরিয়ে নেওয়া এবং গণহত্যায় অংশগ্রহণকারীদের বিচারের মুখোমুখি করা।

ইমরান এইচ সরকারের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলে ছিলেন মঞ্চের কর্মী তাহমিন সুলতানা সাথী, শিবলী হাসান, জীবনানন্দ জয়ন্ত ও আকরামুল হক।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/এস আর/এইচ কে

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:৫২ এ.ম