President

বাংলাদেশের জিডিপি’র প্রবৃদ্ধির হার পাকিস্তান এবং জনসংখ্যা অনুপাতে ভারত থেকেও বেশী বলে উল্লেখ করে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক আব্দুল মান্নান বলেছেন, ‘অচিরেই বাংলাদেশ একটি বৃহৎ অর্থনীতি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে এবং সেই প্রবৃদ্ধি হবে আজকের তরুণদের হাত ধরেই।’

নগরীর জামালখানে অবস্থিত চিটাগং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটিতে (সিআইইউ) আয়োজিত এক ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি। বিশ্ববিদ্যালয়ে শরৎকালীন সেমিস্টারে ভর্তি হওয়া নতুন শিক্ষার্থীদের জন্য এই ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহফুজুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন সিআইইউ ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য আমির হুমায়ুন মাহমুদ চৌধুরী, সিআইইউর প্রকৌশল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. রেজাউল হক খান, ব্যবসায় অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. নুরুল ইসলাম নাহিদ এবং ইংরেজি বিভাগের প্রধান সার্মেন রড্রিক্স।

প্রধান অতিথির বক্তব্য অধ্যাপক আব্দুল মান্নান আরও বলেন, বাংলাদেশের ৪২ শতাংশ জনসংখ্যার বয়স ২৪ এর নীচে। এদের মধ্য দিয়েই আমরা ভবিষ্যতের বাংলাদেশকে দেখি। এদের হাত ধরেই বাংলাদেশ শীঘ্রই অর্থনীতির বৃহৎ শক্তি হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে।

তরুণদের নিজেদেরকে মানবসম্পদে পরিণত করার আহ্বান জানিয়ে অধ্যাপক আব্দুল মান্নান বলেন, তরুণদের হাতের এবং মগজের দক্ষতা বাড়াতে হবে, নিজ থেকে শিখতে হবে, শেখার আগ্রহ থাকতে হবে। সর্বোপরি কম্পিউটার চালনা এবং কমিউনিকেশনে দক্ষতা অর্জন করতে হবে।

বাংলাদেশে প্রায় ৬ লাখ বিদেশী কাজ করছে উল্লেখ করে ইউজিসি চেয়ারম্যান বলেন, ভারত, শ্রীলংকা, নেপাল এবং চায়নার প্রায় ৬ লাখ লোক এদেশে কাজ করে যাদের মধ্যে মাত্র ১৭ থেকে ২০ হাজার বৈধ বাকীরা সবাই অবৈধ। এই অবৈধ বিদেশীরা এদেশ থেকে প্রতিবছর ৫ বিলিয়ন ডলার নিয়ে যাচ্ছে, যেখানে ৮০ লাখ বাংলাদেশী বিদেশ হতে মাত্র ১৪ বিলিয়িন ডলার দেশে পাঠাতে সক্ষম হয়। অপরদিকে ফিলিপিনের ৩০ লাখ মানুষ বিদেশে কাজ করে বাংলাদেশের ৩ গুণ অর্থ তারা দেশে পাঠায়।

অধ্যাপক আব্দুল মান্নান বলেন, আমাদের দেশের শিক্ষার্থীদের ডিগ্রি আছে, কিন্তু ডিগ্রির পেছনে যে জ্ঞানটি থাকা দরকার সেটি তাদের নেই। নিজের প্রজ্ঞা প্রদর্শন করতে না পারলে চাকরির বাজারে সার্টিফিকেটের কোন মূল্য নেই বলে তিনি উল্লেখ করেন।

তরুণদের মাদক এবং ধর্মীয় উগ্রবাদ হতে দূরে থাকার পরামর্শ দিয়ে অধ্যাপক আব্দুল মান্নান আরোও বলেন, কোন ধর্মই ঘৃণাকে সমর্থন করে না। নিরীহ মানুষ মেরে কখনই ধর্ম কায়েম হয়নি। মহানবী (স.) যুদ্ধে সৈন্য প্রেরণের আগে তাঁদের নিরীহ মানুষ হত্যা বা গাছপালা ধ্বংস করা হতে বিরত থাকার নির্দেশ দিতেন। গৌতম বুদ্ধ শান্তির বাণী প্রচার করলেও তাঁর অনুসারীরা আজ সন্ত্রাসে লিপ্ত বলে মত প্রকাশ করেন অধ্যাপক আব্দুল মান্নান।

অনুষ্ঠানে সিআইইউ ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য আমির হুমায়ুন মাহমুদ চৌধুরী বলেন, সিআইইউতে শিক্ষার্থী এবং শিক্ষকদের প্রয়োজনীয় সব সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করা হয়েছে। সিআইইউ কর্তৃপক্ষ বর্তমানে স্থায়ী ক্যাম্পাস নির্মাণের ব্যাপারে কাজ করে যাচ্ছে। পড়াশুনা শেষ করে শিক্ষার্থীরা এখান থেকে নতুন ব্যক্তিত্বসম্পন্ন মানুষ হিসেবে বের হবে বলে তিনি বক্তব্যে আশা প্রকাশ করেন।

সিআইইউর উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহফুজুল হক চৌধুরী নতুন শিক্ষার্থীদের স্বাগত জানিয়ে বলেন, সিআইইউতে মানসম্পন্ন শিক্ষা প্রদানের জন্য সবধরনের সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে। কিন্তু এই সুবিধাগুলোর পরিপূর্ণ ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে শিক্ষার্থীদের নিজেদেরকেই। তিনি তাদের শুধু শ্রেণীকক্ষের পড়াশুনায় সীমাবদ্ধ না রেখে যুগের চাহিদা অনুযায়ী নিজেদের প্রস্তুত করার পরামর্শ দেন।

সিআইইউর ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার নাহিদ খানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে পুরানো শিক্ষার্থীদের মধ্য হতে বক্তব্য দেন ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী মারিয়া এবং নতুনদের মধ্য হতে বিবিএ’র শিক্ষার্থী আব্দুর রহমান। অনুষ্ঠানে এসময় আরোও উপস্থিত ছিলেন সিআইইউর ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক কাজী মোস্তাইন বিল্লাহ, ব্যবসায় অনুষদের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. এম. আইয়ূব ইসলাম সহ বিভিন্ন বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং শরৎকালীন সেমিস্টারে ভর্তি হওয়া নতুন শিক্ষার্থীরা।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/এস আর/এইচ কে

 

০৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ২১:৪০ পি.এম