সাব্বির হাসান ও কামরুল ইসলাম  :  ফরিদপুরের সদরপুর উপজেলায় আকটেরচর ইউনিয়নের জনসংঘ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির এক ছাত্রী (১৫) ধর্ষণের প্রতিবাদে ধর্ষকদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার ও ফাঁসির দাবীতে ফের দ্বিতীয় দিন আজ রোববার উপজেলা প্রশাসন কার্যালয় চত্ত্বরে  প্রায় ৩শতাধিক সহপাঠী ও বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা মানব বন্ধন করেছে।

সকাল ১১টা থেকে শুরু করে দুপুর ২টা পর্যন্ত ৩ঘন্ট্যাব্যাপী মানববন্ধনে বিভিন্ন শ্লোগানে মুখরিত ছিলো প্রশাসন চত্ত্বর। দুপুরে ফরিদপুর-৪ আসনের জাতীয় সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন মানব বন্ধনে অংশ নেয়। ওই সময় তিনি তার বক্তব্যে বলেন, আমি এলাকার সকলের সহযোগীতা চাই ধর্ষকদের কে গ্রেপ্তারের জন্য। যত বড় ক্ষমতাধর ব্যক্তিরা ধর্ষকদের বাঁচাতে চেষ্ঠা করুক না কেনো তাদের অবিলম্বে গ্রেপ্তার করতে তিনি আইন শৃঙ্খলা বাহিনাকে অনুরোধ জানান।

nixon manabodhon pic copy

ধর্ষকদের গ্রেপ্তার করতে কতদিন সময় লাগবে জানতে চাইলে, সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আগামী ৭দিনের মধ্যে গ্রেপ্তার করবে আইনশূঙ্খলা বাহিনী। ওই সময় সদরপুর থানার ওসি মোঃ হারুন অর রশীদ উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন, ফরিদপুর জেলা পরিষদ সদস্য মোঃ গোলাম রব্বানী(পান্নু কাজী), মহিলা সদস্য বিউটি আক্তার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ হারিজুর রহমান, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান জিনিয়া নাজনীন কল্পনা, সদরপুর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলাম বাবুল, নূরুল্লাগঞ্জ ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ শাহিন আলম শাহাবুর, উপজেরামাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ জালাল উদ্দিন আহম্মেদ। বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ মিজানুর রহমান শিকদার, প্রধান শিক্ষক মোঃ আঃ রশিদ খান।

উল্লেখ্য, ঘটনার পরদিন থেকে স্কুল ছাত্রীর ধর্ষকদের গ্রেপ্তারের দাবীতে বিদ্যালয়ে ক্লাশ বর্জন করেছে সহপাঠীরা। গত বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে ওই ছাত্রী প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে বাইরে গেলে পূর্ব থেকে ওৎ পেতে থাকা আকোটেরচর ইউনিয়নের দোপ আকোট গ্রামের বাবু কাজীসহ আরও  দুইজন তাঁর মুখ চেপে ধরে পাশের একটি বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে সে ধর্ষনের শিকার হয়। ছাত্রীটির মা-বাবা ও স্থানীয় লোকজন খোঁজাখুজির পর রাত চারটার দিকে তাকে বাড়ির সামনের রাস্তা থেকে উদ্ধার করেন।
পরদিন শুক্রবার দুপুরে সদরপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ধর্ষণের অভিযোগে দোপ আকোটেরচর গ্রামের বাদশা কাজীর ছেলে বাবু কাজী (২১), মজনু মুন্সীর ছেলে ফারুক মুন্সী (১৮) ও মান্না কাজীর ছেলে সাখাওয়াত কাজীসহ (২২), ৩ জনের বিরুদ্ধে সদরপুর থানায় মামলা দায়ের হয়। এব্যাপারে সদরপুর থানার ওসি মোঃ হারুন অর রশীদ বলেন, আসামীরা পলাতক। তাদের গ্রেপ্তারের জন্য প্রতিনিয়ত অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এস আর/কামরুল/নীরব/০৯ এপ্রিল ২০১৭