রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইন-২০১৭ এর খসড়া অনুমোদন করেছে মন্ত্রিপরিষদ। সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সভাকক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। শফিউল আলম বলেন, রাজশাহী টাউন ডেভেলপমেন্ট অথরিটিকে পরিবর্তন করে নতুন আইনে রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ করা হয়েছে। একইসঙ্গে নতুন আইনে জলাধার আইনটিও অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। জলাধার বলতে, জলাধার আইনে যে সংজ্ঞা আছে সেটাই এখানে অন্তর্ভুক্ত করা হবে। আর আইনের ২৫ ধারায় শাস্তির বিধান রাখা হয়েছে। আইন ভঙ্গ করলে সর্বোচ্চ এক বছরের কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা অথবা উভয় দণ্ড হতে পারে।

তিনি আরও বলেন, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের এলাকাটি রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের এলাকা হিসেবে গণ্য করা হবে। ওই এলাকায় সরকারের মহাপরিকল্পনা ও ভূমি আইন ভঙ্গ করলে তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে। এছাড়া মন্ত্রিপরিষদ বৈঠকে বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন বোর্ড (বিআরডিবি) আইন-২০১৭ এর খসড়ায় অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এর সভার বিধানেও আনা হয়েছে পরিবর্তন। বিআরডিবি আইন অনুযায়ী দুই মাসে একবার বোর্ড সভা হতো। নতুন আইন অনুযায়ী প্রতি ছয় মাসে একবার সভা হবে। স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী থাকবেন বোর্ডের চেয়ারম্যান, সচিব থাকবেন ভাইস চেয়ারম্যান, বোর্ডের মহাপরিচালক সদস্য সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এক তৃতীয়াংশ সদস্য উপস্থিত থাকলে কোরাম পূর্ণ হবে।

সভায় আয়কর অধ্যদেশ-১৯৮৪ এর বিধানাবলী আয়কর আইন-২০১৭ হিসেবে পাস করার জন্য মন্ত্রিসভায় নীতিগত অনুমোদন হয়েছে। এ আইনে এ পর্যন্ত আনা সব সংশোধনী নতুন আইনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। অন্যদিকে, বাংলাদেশ ও ওমানের মধ্যে স্বাক্ষরের জন্য তৈরি করা এগ্রিমেন্ট অন দ্য প্রমোশন অ্যান্ড রেসিপ্রোকল প্রটেকশন অব ইনভেস্টমেন্ট বিটুইন দ্য গভর্নমেন্ট অব দ্য পিপল অব বাংলাদেশ অ্যান্ড দ্য গভর্নমেন্ট অব দ্য সুলতানাত ওমান এর খসড়ায় অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এর মধ্য দিয়ে উভয় দেশের মধ্যে বিনিয়োগের পরিমাণ, সুযোগ সৃষ্টি, কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে এবং উভয় দেশ শিল্পে স্বয়ংসম্পূর্ণ হবে।

এছাড়া প্রধানমন্ত্রীর ভুটান সফর উপলক্ষে এগ্রিমেন্ট অন কালচারাল কো অপারেশন বিটুইন দ্য রয়েল গভর্নমেন্ট অব ভুটান অ্যান্ড দ্য গভর্নমেন্ট অব দ্য পিপল অব বাংলাদেশ এর খসড়া অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। চুক্তিটি হবে ৫ বছরের জন্য। পরে আরও ৫ বছরের জন্য নবায়ন করা যাবে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, বৈঠকে ঐতিহাসিক মুজিব নগর দিবস উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশবাসীকে অভিনন্দন, বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার প্রতি শ্রদ্ধা জানান এবং তার ভারত সফরের আদ্যোপান্ত মন্ত্রিপরিষদকে অবহিত করেন।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এস আর/নীরব/কামরুল/ ১৭ এপ্রিল ২০১৭