বাংলাদেশে নিযুক্ত ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত মিখাইল হেমনিটি উইনথার বলেছেন, বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণের বাইরে নয়। জঙ্গিবাদ দমনে সরকারের পদক্ষেপও প্রশংসনীয়। তবে ‘হলি আর্টিজানে’ হামলার মতো জঙ্গি হামলার ঝুঁকি এখনও রয়ে গেছে। শুধু বাংলাদেশ নয়, বিশ্বের ১৪০টি দেশ এখন জঙ্গি আক্রমণের ঝুঁকিতে রয়েছে।

মঙ্গলবার কূটনৈতিক প্রতিবেদকদের সংগঠন ডিক্যাব আয়োজিত ‘ডিক্যাব টকে’ অংশ নিয়ে তিনি এসব কথা বলেন। জাতীয় প্রেস ক্লাবে ডিক্যাব সভাপতি রেজাউল করিম লোটাসের সভাপতিত্বে এ আয়োজনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ডিক্যাব সাধারণ সম্পাদক পান্থ রহমান।

এক প্রশ্নের জবাবে ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত বলেন, “জঙ্গিবাদ দমনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পদক্ষেপ প্রশংসনীয়। বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণের বাইরেও নয়। কিন্তু জঙ্গি হামলার ঝুঁকি রয়ে গেছে। গত বছরের জুলাইয়ে ‘হলি আর্টিজানে’ জঙ্গি হামলার ঘটনার পর থেকে যে ঝুঁকি অনুভূত হচ্ছে, তা এখনও দূর হয়নি। এখনো কূটনীতিক ও বিদেশি নাগরিকদের চলাফেরায় সীমাবদ্ধতা রয়েছে। নিজেদের রক্ষার জন্য নিজেরাই নানান পদক্ষেপ নিচ্ছি।”

তিনি আরও বলেন, ‘জঙ্গিবাদের হামলার এ ঝুঁকি শুধু একটিমাত্র দেশে নয়, বিশ্বের ১৪০টি দেশই এ ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে আন্তর্জাতিকভাবে ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টার বিকল্প নেই।’

রামপালে বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে রাষ্ট্রদূত উইনথার বলেন, ‘এটি একটি বিতর্কিত বিষয়। এ নিয়ে কূটনীতিক হিসেবে মন্তব্য করা ঠিক নয়। তবে বাংলাদেশের জন্য আরও বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন যেমন জরুরি, তেমনি পরিবেশ ও প্রকৃতি রক্ষা করাও বিশ্বজুড়েই গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু। এ ব্যাপারে যত বেশি বিশেষজ্ঞ মতামত নেওয়া যায় ততোই ভালো।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থী সংকটজনিত যে সমস্যা সে ব্যাপারে ইউরোপীয় ইউনিয়ন কিংবা ডেনমার্ক কোনও সমাধান দেবে না। বাংলাদেশ ও মিয়ানমারকে আলাপ-আলোচনার মধ্য দিয়েই এর সমাধান করতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে মানুষ মারা যাচ্ছে। ডেনমার্ক ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন সেখানে মানবিক সহযোগিতা দিচ্ছে। আন্তর্জাতিক রীতি-নীতি মেনে রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের মানুষের মানবাধিকার রক্ষার জন্যও কাজ করছে ইইউ ও ডেনমার্ক।’

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এস আর/নীরব/কে আই/ ১৬ মে ২০১৭