উজ্জ্বল রায়, নড়াইল : নড়াইলে নায্য মূল্য পাচ্ছেন না মহিলা শ্রমিকরা। সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নারী ও পুরুষ শ্রমিক একইসাথে শ্রম বিক্রি করলেও প্রতিদিন তিন বেলা খেয়ে পুরুষ শ্রমিক মজুরি হিসেবে পাচ্ছেন সাড়ে ৭০০ থেকে ৮০০ টাকা। কিন্তু একই কাজ করে নারী শ্রমিকেরা মজুরি পাচ্ছেন ২০০ থেকে ২৫০ টাকা।

বিস্তারিত উজ্জ্বল রায়ের রিপোর্টে, নারী শ্রমিকদের অভিযোগ, পুরুষদের পাশাপাশি একই মালিকেরে একই জমিতে পরিশ্রম করলেও তাদেরকে পুরুষদের তুলনায় মজুরি দেয়া হয় তিন ভাগের এক ভাগ।

এক নারী শ্রমিক জানান, তিনি প্রতিদিন পুরুষ শ্রমিকদের সাথে নড়াইলের মাছিমদিয়া বিলে ধান কাটেন। বিনিময়ে তাকে দুপুরে খেতে দেন জমির মালিক এবং মজুরি হিসাবে তাকে দেয়া হয় ১৭৫ থেকে ২০০ টাকা। সপ্তাহে দুই হাটের দিন মালিক তাদের মজুরি দেন। বর্তমানে বিভিন্ন এলাকায় বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে বলে মজুরি এখন কিছুটা বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্য সময়ে তারা মজুরি পান ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা।
rice
নারী শ্রমিক নাজু বিবি বলেন. তিনি কখনও ধান কাটেন, কখনও ধানের বিছালি বাধেন, কখনও সেই ধান মাথায় করে গৃহস্থের বাড়িতে এনে দেন। এসব কাজের বিনিময় দিনে তিনি মজুরি পান ১৭৫ টাকা। এই টাকা দিয়েই ছেলের চিকিৎসাসহ সংসারে সকল খরচ বহন করতে হয় তার। সকালে ঘুম থেকে উঠে মাঠে আসেন। তার দাবি পুরুষ শ্রমিকদের সমান মজুরি দেয়া হোক তাদের।

ধানকাটা শ্রমিক আলমতি মজুমদার বলেন, সারা বছর পরের জমিতে কাজ করি। জমিতে যখন যে কাজ থাকে তখন সেই কাজ করি। পুরুষদের পাশাপাশি ধান কাটা থেকে শুরু করে ধানে বিছালি বাধা, ধান মাড়াই করা, সেই ধান মাথায় করে মালিকের বাড়িতে পৌঁছে দেয়াসহ সব ধরনের কাজই করি। বিনিময়ে জমির মালিক দিনে মজুরি হিসাবে ২০০ টাকা দেন। একইসাথে একই কাজ করে পুরুষ শ্রমিকেরা পাচ্ছে ৭০০ থেকে সাড়ে ৮০০ টাকা। জেলায় হাজার হাজার নারী শ্রমিক রয়েছে। প্রকৃতপক্ষে নারী শ্রমিকের সংখ্যার কোন সঠিক পরিসংখ্যন কোন দপ্তরের কাছে নেই। নারী শ্রমিকরা নড়াইল জেলার উন্নয়নে ব্যাপক ভুমিকা পালন করছে। পুরুষদের পাশাপাশি নারী শ্রমিকরাও সব ধরণের কাজ করছেন। পুরুষ শ্রমিকের তুলনায় নারী শ্রমিকের মজুরি অনেক কম। অথচ পুরুষদের পাশাপাশি নারীরাও একই কাজ করছে যা তাদের জন্য অপমানজনক।

নড়াইল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক বলেন, নড়াইলে পুরুষদের পাশাপাশি নারী শ্রমিকরাও শ্রম বিক্রি করেন। বিভিন্ন মাঠে বোরো ধান ঘরে তোলার ক্ষেত্রে পুরুষ শ্রমিকদের সমান নারী শ্রমিকদের ভূমিকা রয়েছে। তবে নারী শ্রমিকরা ধান কাটাসহ বিভিন্ন কাজ করলেও পুরুষদের তুলনায় কম পায়। নারী শ্রমিকদের মজুরি পুরুষদের সমান হওয়া উচিত।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এ আর/কে আর/এইচ কে/ ১২ মে ২০১৭