চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামের সবচেয়ে বড় ইয়াবা সিন্ডিকেটের প্রধান মোজাহারের সন্তানরা পড়ছেন দেশ-বিদেশের নামীদামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে।নিজের সন্তানদের উচ্চশিক্ষায় শিক্ষিত করলেও দেশের তরুণদের ইয়াবায় আসক্ত করে মোজাহার তাদের জীবন নষ্ট করে দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন র‌্যাব-৭ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদ।

রোববার (১৬ এপ্রিল) চট্টগ্রাম সার্কিট হাউজে আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় মিফতাহ বলেন, মোজাহারের দুই ছেলে দুই মেয়ে। এক ছেলে অস্ট্রেলিয়ায় পড়াশোনা করে।আরেক ছেলে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ছে। ইংরেজি সাহিত্যে মাস্টার্স করা এক মেয়েকে প্রতিষ্ঠিত ব্যবসায়ীর কাছে বিয়ে দিয়েছেন। আরেক মেয়ে চট্টগ্রামে একটি ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল থেকে পাশ করে প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ে বিবিএ পড়ছেন।

নিজের সন্তানরা হচ্ছে উচ্চশিক্ষিত আর দেশের তরুণদের হাতে ইয়াবা তুলে দিয়ে মোজাহার তাদের বিপথে নিয়ে যাচ্ছে। বলেন মিফতাহ

তিনি আরও জানান, মোজাহারের পেঁয়াজ-মরিচের পাইকারি ব্যবসা আছে। এর আড়ালে তিনি ইয়াবার ব্যবসার সঙ্গে জড়িত।নগরীর সুগন্ধা আবাসিক এলাকায় তার বিলাসবহুল বাড়ি আছে।

প্রত্যেক ইয়াবা ব্যবসায়ীই এই ধরনের। ইয়াবা বিক্রি করে টাকা উপার্জন করে ফাউন্ডেশন করে। দান-খয়রাত শুরু করে। যাতে আমরা টাচ করতে না পারি, নিজেদের এমন একটা ভাবমূর্তি তারা গড়ে তুলে। বলেন মিফতাহ

মোজাহার সিন্ডিকেটের প্রধান মো. মোজাহারসহ ৯ জনকে রোববার ভোরে র‌্যাব ২০ লাখ পিস ইয়াবাসহ আটক করেছে। আটক হওয়া বাকি ৮ জন হলেন, মোজাহারের ম্যানেজার মকতুল হোসেন এবং সহযোগী মো. নুর (৩৭), মো. হেলাল (২১), মো. আবদুল খালেদ (৬০), মো. জানে আলম (৩২), মো. লোকমান (৫৯), এনায়েত উল্লাহ (৭২) ও নুরুল মোস্তাফা (২৬)। এদের মধ্যে মকতুল কক্সবাজার জেলার টেকনাফ উপজেলার বাসিন্দা। অন্য আটজন আনোয়ারা উপজেলার রায়পুর ও হাসানপুর গ্রামের বাসিন্দা।

র‌্যাব প্রথমে গভীর সমুদ্রে একটি মাছ ধরার ট্রলার থেকে ৮ জনকে ২০ লাখ পিস ইয়াবাসহ আটক করে।এরপর তাদের দেয়া তথ্যমতে মোজাহারকে নগরীর সুগন্ধা আবাসিক এলাকার বাসা থেকে আটক করা হয়েছে।

আটকের পর রোববার বিকেলে নগরীর পতেঙ্গায় র‌্যাব-৭ এর কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত প্রকাশ করা হয়। এসময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল,র‌্যাবের অতিরিক্ত মহা পরিচালক আনোয়ার লতিফ খান, র‌্যাব-৭ এর অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদ ও র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার প্রধান কমান্ডার মুফতি মাহমুদ খান উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত ডিসেম্বর থেকে মার্চ মাসের মধ্যে চট্টগ্রামে প্রায় ৭৬ লাখ ইয়াবার চারটি চালান খালাস করেছে সংঘবদ্ধ ইয়াবা সিন্ডিকেটের প্রধান মোজাহার।পঞ্চম দফায় আরও ২০ লাখ ইয়াবার একটি চালান আনতে গিয়ে র‌্যাবের হাতে ধরা পড়েছে আনোয়ারা-গহিরার সবচেয়ে বড় মাদক সিন্ডিকেটটির প্রধান মোজাহারসহ ৯ জন।

দেশে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে আটক ইয়াবা চালানের মধ্যে রোববার (১৬ এপ্রিল) আটক হওয়া চালানটি দ্বিতীয় বড় চালান বলে সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছেন র‌্যাব-৭ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল মিফতাহ উদ্দিন আহমেদ।

এতে আরও জানানো হয়, মোজাহার, জলিল প্রকাশ লবণ জলিল এবং আব্দুর নূর এই তিনজন মিলে গত চার মাসে ৭৬ লাখ ইয়াবা দেশে নিয়ে আসে। সর্বশেষ ২০ লাখ পিস ইয়াবার চালানটিও তারাই দেশে এনেছিল। শুক্কুর, লাল মিয়া ও মগ সেন্সু নামে মিয়ানমারের তিন নাগরিক তাদের ইয়াবাগুলো সরবরাহ করেছিল।

গত ডিসেম্বর মাসে ১৬ লাখ এবং পরবর্তী তিন মাসে ২০ লাখ করে মোট ৬০ লাখ পিস ইয়াবা আনোয়ারার গহিরা উপকূলে খালাস করা হয়েছিল।

এর ধারাবাহিকতায় আরও ২০ লাখ ইয়াবার চালানটি সংগ্রহের জন্য গত ৭ এপ্রিল রাত ১০টায় মোহছেন আউলিয়া নামে একটি মাছ ধরার ট্রলারে করে গ্রেফতার হওয়া ৮ জন কর্ণফুলী নদীপথে যাত্রা শুরু করে। তাদের সঙ্গে ছিল মিয়ানমারের নাগরিক মগ সেন্সু। তারা কর্ণফুলী নদী দিয়ে কুতুবদিয়া, কক্সবাজার, টেকনাফ, শাহপরীর দ্বীপ, সেন্টমার্টিন, ছেঁড়াদ্বীপের পশ্চিমে মায়ানমার সীমান্তে সেদেশের একটি তেলের জাহাজের কাছে যায়। জাহাজটি থেকে ইয়াবা সংগ্রহের পর সেন্সু ওই জাহাজে উঠে যায়।

এরপর ট্রলারটি টেকনাফের ছেঁড়াদ্বীপ হয়ে দক্ষিণ হাতিয়া দ্বীপের কাছে মোক্তারিয়া এলাকায় যায়।কাটালিয়া দিয়ে আনোয়ারা-গহিরা আসার পথে ট্রলারটি গভীর সমুদ্রে র‌্যাবের হাতে আটক হয়।

সংবাদ সম্মেলনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ইয়াবাগুলো ধরার পর পাচারকারী চক্রের মূল হোতাকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। তিনি সমাজে ভালো মানুষের মুখোশ পড়ে ছিলেন। যতই আড়ালে আবডালে থাকুক, ইয়াবার সঙ্গে যারা জড়িত তাদেরকে খুঁজে বের করা হবে।ইয়াবা ব্যবসার সঙ্গে জড়িত যার নাম আসবে তাকে সমাজে ইয়াবা ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হবে।

তিনি বলেন, একদিকে ইয়াবা ব্যবসা করবেন অন্যদিকে সাধু সেজে থাকবেন তা সম্ভব হবে না। ভবিষ্যতেও যারা সমাজকে এভাবে দুই ধরনের চেহারা দেখাবেন, তাদের মুখোশ উন্মোচন করে দেওয়া হবে।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/এস আর/নীরব/কামরুল/ ১৬ এপ্রিল ২০১৭