ঐতিহাসিক ৭ই মার্চ  বাঙালী জাতির ইতিহাসে এক আত্মোপলব্দির অঙ্গীকারের দিন। ১৯৭১সালের ৭ই মার্চ বঙ্গবন্ধুর এই ঐতিহাসিক ভাষণের দিনটি প্রতি বছর যথাযোগ্য মর্যাদায় দেশে বিদেশে পালিত হয়ে আসছে। বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে দেখার সুযোগ আমার হয়নি.।কারন  ১৯৭০ সালে আমার জন্ম।

১৯৭৫ সালের ১৫ ই আগষ্ট  যদি  জাতির জনককে হত্যা করা না হতো তাহলে  আমাদের মত প্রজন্মদের  হয়তবা এই বিশাল মনের মহানায়কের  সানিদ্য পাবার সুযোগ হতো।  তবুও আমার শৈশবের লালিত স্বপ্ন কৈশোরের উচ্ছ্বাস,যৌবনের অনুভূতি,ভালোলাগা ও-ভালোবাসার প্রাণের সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের স্কুলজীবন থেকে  বঙ্গবন্ধুর একজন আদর্শিক গর্বিত-ছাত্রলীগ কর্মী হিসাবে কাজ করার যে সুযোগ হয়েছিলো। এজন্য নিজেকে ধন্য ও সৌভাগ্যবান মনে করছি। বঙ্গবন্ধুর আদর্শিক রাজনৈতিক কর্মী হিসাবে প্রতিবার যখন এই ঐতিহাসিক ভাষণটি শুনি তখন তা আমাকে প্রচন্ড আবেগে আলোড়িত করে।

নিজেকে নব- চেতনায় উজ্জীবিত করে দেশের জন্য মানুষের জন্য নিষ্ঠা ও নিরলসভাবে  কাজ করতে। যাহা শুধু আমাকে নয় আমাদের প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তর এই ভাষণ অনুপ্রেরণা যোগাবে বলে আমি মনে প্রাণে  বিশাস করি। এখানে উল্লেখ্য যে  স্কুলজীবন থেকেই আমি বঙ্গবন্ধুর এই ঐতিহাসিক ভাষণটি মুখস্থ করে  ফেলেছিলাম। ক্লাস নাইনের ছাত্র হিসাবে মহান স্বাধীনতা দিবসের এক অনুষ্ঠানে  বঙ্গবন্ধুর এই ঐতিহাসিক ভাষণ দিয়ে স্কুলভিত্তিক উপস্থিত বক্তৃতায় আমি প্রথম পুরস্কারও লাভ করেছিলাম। ১৯৭১ এর এই দিনে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে (তৎকালীন রেসকোর্স ময়দান) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান বাঙালী জাতির উদ্দেশ্যে যে ঐতিহাসিক ভাষণ প্রদান করেছিলেন। এই জ্বালাময়ি ভাষণ সকল  বাঙালীদেরকে উদ্দীপ্ত করে এনে দেয় অসীম সাহস। রক্তে আগুন জ্বালায় মুক্তিকামী মানুষের। বাঙালী জাতিকে করেছিলো সংগ্রামী চেতনায় উজ্জীবিত। ৭ই মার্চ দিনটি বাঙালি রাজনৈতিক কবির  এই শব্দযুগল ভাষণ  বাঙ্গালীর অধিকার, স্বাধিকার থেকে স্বাধীনতার আন্দোলনের মূলমন্ত্রে পরিণত হয়। উত্তাল একাত্তরে শেখ মুজিবের ভাষণে সেদিন পুনজাগ্রত হয়েছিলো গোটা জাতি। সংকল্পে মুষ্টিবদ্ধ হয়েছিলো অত্যাচারী হানাদারদের বিরুদ্ধে। বঙ্গবন্ধুর দেয়া দীর্ঘ ভাষণে তিনি পূর্ব বাঙলার মানুষের ওপর যুগ যুগ ব্যাপী চলতে থাকা অত্যাচার-লাঞ্ছনা-বঞ্চনা আর উৎপীড়নের প্রতিবাদে স্বাধিকারের প্রশ্নে পাকিস্তানি শোষক গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে দেশবাসীকে রুখে দাঁড়াবার প্রস্তুতির আহ্বান জানিয়েছিলেন।

১৯৪৭ সালের পর সুদীর্ঘ ২৩ বছরের শোষণের চূড়ান্ত পর্যায়ে বাঙালি জাতির জাতিসত্ত্বা, জাতীয়তাবোধ এবং জাতিরাষ্ট্র গঠনের যে ভিত রচিত হয় তারই পরবর্তী দিক-নির্দেশনা ছিলো জাতির জনকের সেদিনের ভাষণে।  ১৯৭০ এর নির্বাচনে নিরংকুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করেন বাঙ্গালীর মুক্তির দিশারী, সংগ্রামী বাঙ্গালী জাতির স্বাধীনতার স্বপ্নদ্রষ্টা,হাজার বছরের  সর্বকালের শ্রেষ্ঠ সন্তান, যাকে বাঙ্গালী তাদের অবতার হিসেবে, মহানায়ক হিসেবে জানে জাতির জনক শেখ মুজিবর রহমান।যাঁর অবিসংবাদিত নেতৃত্বে বহু রক্তাক্ত পথ  পাড়ি দিয়ে এলো সেই মাহেন্দ্রক্ষন। এজন্যে পুরো জাতি ছিল অধীর আগ্রহে অপেক্ষমান। সারা দেশ থেকে আগত লক্ষ লক্ষ জনতার অপেক্ষা,  শেষে আসলেন মহানায়ক, বাঙ্গালীর প্রানের নেতা। বঙ্গবন্ধু, কোন কাগজে লেখা কবিতা নয়, কারো বলে  দেওয়া কোন ভাষন নয়, তাঁর হৃদয়ের গভীর অনুভুতি, দেশমাতৃকার প্রতি অসীম ভালোবাসা, বাঙ্গালীর প্রতি অসীম মমত্ত্ববোধ সবকিছু মিলিয়ে দরাজ কন্ঠে পাঠ করলেন তার অমর কাব্য এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম/ এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম”।

জাতির জনকের সেদিনের দেওয়া  ভাষণে তিনি আত্মপরিচয়, স্বাধীনতা, অধিকার এবং মুক্তি অর্জনে যুদ্ধের ডাক দিয়েছিলেন।তার সেই বজ্রকণ্ঠের ভাষনটি ইতিমধ্যে সর্বকালের সকল বিপ্লবী মহানায়কদের ভাষনের মধ্যে শ্রেষ্ঠতম বলে সীকৃতি লাভ করেছে। আজকের এই দিনে সেই বঙ্গবন্ধুকে সরণ করছি যার চিন্তায় চেতনায় বাঙ্গালী জাতির সম্পৃক্তি ও অক্ষয় ভালোবাসা মিশ্রিত বলিষ্ঠ নেতৃত্বে আজকের এই বাংলা ও বাঙ্গালী। যার জন্য জাতি পেয়েছে লাল বৃত্ত সবুজ পতাকা। দোয়া করি মহান আল্লাহ্‌ যেনো উনাকে জান্নাতবাসী করেন. আমিন.।আর  আজকের এই লিখনীর মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকারের সফল প্রধানমন্ত্রী, আধুনিক বাংলাদেশের রূপকার  গনতন্ত্রের মানস কন্যা বঙ্গবন্ধুর তনয়া দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার  ডিজিটাল বাংলার আলোর মিছিলকে এগিয়ে নিতে সবার সহযোগীতা কামনা  করছি। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, জয় হোক গনতন্ত্র কন্যার। বাংলাদেশ চিরজীবী হোক।

লেখক পরিচিতি:- বৃটেনের কমিউনিটি সংগঠক  সাবেক ছাত্রনেতা ও টিভি সাংবাদিক  মকিস মনসুর আহমদ, যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য, ওয়েলস যুবলীগের সাবেক সভাপতি এবং জাস্টিস ফর বাংলাদেশ জেনোসাইড ১৯৭১ ইউকের কনভেনার এর দায়িত্ব পালন করছেন।