তীব্র উত্তেজনার মধ্যে কমিউনিস্ট রাষ্ট্র উত্তর কোরিয়ার একটি ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে বলে জানিয়েছে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়। তবে এবার কী ধরনের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার চেষ্টা চালানো হয়েছে, সেটি এখনো জানা যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্র সামরিক বাহিনীর প্যাসিফিক কমান্ডও এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছে।

জানা গেছে, উত্তর কোরিয়ার পূর্বাঞ্চলে সিনপোর কাছে ওই পরীক্ষার চেষ্টা করা হয়েছিল এবং উৎক্ষেপণের পরপরই ক্ষেপণাস্ত্রটি বিস্ফোরিত হয়ে যায়। ঘটনাটি এমন সময় ঘটল, যখন কোরীয় উপত্যকায় তীব্র উত্তেজনা বিরাজ করছে।

মার্কিন ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স উত্তর কোরিয়ার পরমাণু কর্মসূচি মোকাবিলায় করণীয় নিয়ে আলোচনা করতে দক্ষিণ কোরিয়ায় যাচ্ছেন। মাত্র একদিন আগেই উত্তর কোরিয়া যুক্তরাষ্ট্রকে হুঁশিয়ার করে বলেছে যে তারা পরমাণু হামলার জন্য প্রস্তুত রয়েছে।

দেশটি এরই মধ্যে পাঁচটি পরমাণু পরীক্ষা ও বেশ কয়েকটি ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প শক্ত অবস্থান নিয়ে বলেছেন, উত্তর কোরিয়ার পরমাণু হুমকি মোকাবিলায় তাঁর দেশ একাই ব্যবস্থা নিতে সক্ষম।

ওদিকে চীন কোরীয় উপত্যকায় যেকোনো সময় যুদ্ধ বেঁধে যাওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করে যুক্তরাষ্ট্র ও উত্তর কোরিয়াকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছে।

গতকাল শনিবার উত্তর কোরিয়ার প্রতিষ্ঠাতা কিম ইল-সাংয়ের ১০৫তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রেসিডেন্ট জং-আন আমেরিকাকে উসকানিমূলক পদক্ষেপ না নিতে সতর্ক করে দেন।

পিয়ংইয়ংয়ে কুচকাওয়াজে ট্যাঙ্ক এবং অন্যান্য সামরিক সরঞ্জামের বড় ধরনের প্রদর্শনী করা হয় নিজেদের বর্তমান সামরিক শক্তি তুলে ধরার জন্য।

ওই সামরিক প্রদর্শনীতে সাবমেরিন থেকে উৎক্ষেপণযোগ্য ব্যালিস্টিক মিসাইল প্রথমবারের মতো জনসমক্ষে তুলে ধরা হয়। বিশ্বের যেকোনো জায়গায় লক্ষ্যবস্তুকে টার্গেট করার উদ্দেশ্যে এই ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবহার সম্ভব।

টাইমস ওয়ার্ল্ড ২৪ ডটকম/নীরব/এ আর/হায়াত/ ১৬ এপ্রিল ২০১৭